সেরা ৩০ সুন্দরীর তালিকায় বাংলাদেশী ঐশী

ডিসেম্বর ২, ২০১৮ ৯:৩৯ সকাল

নিউজ ডেক্সঃ

চীনে চলমান ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতার ৬৮তম আসরে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছেন বাংলাদেশের সুন্দরী জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী। সেখানে বিশ্বের নানা দেশ থেকে আসা সুন্দরীদের সঙ্গে মিস ওয়ার্ল্ড হওয়ার লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয়েছেন তিনি।

সম্প্রতি প্রতিযোগিতটির ‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ পর্বের ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। এ পর্বের ফলাফলের ভিত্তিতে প্রকাশ করা হয়েছে প্রতিযোগিতার সেরা ৩০ সুন্দরীর নাম, যে তালিকায় এসেছে ঐশীর নামও। তাও আবার যেনতেনভাবে নয়, গ্রুপ পর্বে নৈপুণ্য প্রদর্শন করে গ্রুপ সেরা হয়েই সেরা ৩০ সুন্দরীর তালিকায় নাম লিখিয়েছেন ঐশী।

‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের’ ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে এই তথ্য।

হেড টু হেড চ্যালেঞ্জের গ্রুপ সিক্সে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ ২০১৮’ ঐশীর প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন ডেনমার্কের টারা জেনসেন, ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডসের ইয়াদালি টমাস সান্তোস, ব্রাজিলের জেসিকা কারভালহো, আয়ারল্যান্ডের ইফা ও’সুলিভান ও চীনের পিরুয়ি মাও। সবাইকে টপকে সেরা হলেন পিরোজপুরের এই তরুণী।

আয়োজকরা জানান, বিশ্বের ১১৮ প্রতিযোগীর মধ্যে নির্বাচিত হয়েছে সেরা ৩০। এরমধ্যে ‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ বিভাগের ২০টি গ্রুপের প্রতিটির বিজয়ীরা সরাসরি পৌঁছে গেছেন ফাইনালে। ঐশী তাদেরই একজন। তাকে এখন অনেকে অভিনন্দন জানাচ্ছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। ১৮ বছরের এই সুন্দরীকে গ্র্যান্ড ফিনালের মঞ্চে দেখতে মুখিয়ে আছেন শুভাকাঙ্ক্ষীরা।

ঐশীর কাছে সঞ্চালক প্রথমে মাকে নিয়ে কিছু শুনতে চেয়েছেন। তার উত্তর ছিল, ‘মা আমার সেরা বন্ধু। তার সঙ্গে সবকিছু শেয়ার করতে পারি। আমার চোখে তিনি দারুণ শিক্ষক। কারণ, মা আমাকে জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিষয় শিখিয়েছেন। তার মনটা অনেক বড়। তিনি আমাকে উদার হতে শিখিয়েছেন। মাকে জীবনে অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে। তাই আমাকেও কঠিন সময়ে ধৈর্য ধরে রাখতে বলেছেন। তাকে আমি অনেক ভালোবাসি। তার প্রতি আমার ভালোবাসা ভাষায় বোঝাতে পারবো না। আমার মা পৃথিবীর সেরা মা। আমার চোখে মিস ওয়ার্ল্ড হলেন মা।’

হেড টু হেড চ্যালেঞ্জে এরপর ঐশীকে প্রশ্ন করা হয়, জীবনের সবচেয়ে বড় লক্ষ্য কী? উত্তরে তিনি বলেছেন, ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ খেতাব জিতেছি। বাংলাদেশের মেয়ে হিসেবে আমি অনেক গর্বিত। লাল-সবুজের প্রতিনিধিত্ব করতে পেরে আমি খুব খুশি। এবার আমার দেশের সুবিধাবঞ্চিতদের জন্য কিছু করতে চাই। ছোটবেলা থেকেই সামাজিক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত হয়েছি। তবে এটা অনেক বড় পরিসরে করতে চাই। এবার মনে হচ্ছে সেই সুযোগটা পাবো।’

‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ বিভাগের প্রথম রাউন্ডে প্রিয় প্রতিযোগীকে ভোট প্রদানের পদ্ধতি ছিল চাররকম। এগুলো হলো— প্রত্যেক দেশের মিস ওয়ার্ল্ড অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে লাইক সংখ্যা, মিস ওয়ার্ল্ড ওয়েবসাইটে কন্টেস্ট্যান্টস অপশনে গিয়ে ভোট প্রদান, অফিসিয়াল মবস্টার অ্যাকাউন্টে প্রতিযোগীদের ছবিতে লাইক দেওয়া ও কমেন্ট করা এবং মডেল পাওয়ার লাইভে নির্দিষ্ট লিংকে ক্লিক করে পছন্দের প্রতিযোগীকে লাইক দেওয়া।

ভোট প্রদানের শেষ সময় ছিল ২৮ নভেম্বর। এই চারটি প্ল্যাটফর্মে সেরা প্রতিযোগীরা স্থান করে নেন ‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ বিভাগের দ্বিতীয় রাউন্ডে। এর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয় ৩০ নভেম্বর বিকাল ৫টা পর্যন্ত। শুক্রবার সন্ধ্যায় ‘মিস ওয়ার্ল্ড’-এর অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে প্রকাশিত হয় বিজয়ীদের তালিকা।

আয়োজকরা জানান, সানিয়া বের ম্যানগ্রোভ ট্রি রিসোর্ট ওয়ার্ল্ডে এর শুটিং হয়েছে। ২২০ কোটিরও বেশিবার দেখা হয়েছে ‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ রাউন্ডের ভিডিওগুলো। তার প্রতিযোগীদের জন্য ভোট পড়েছে ২ কোটি।