ঈদের খুশির পাপড়ি ছড়িয়ে পড়ুক শহর ও গ্রাম-গঞ্জে

জুন ১২, ২০১৮ ১০:১২ দুপুর

কাজী আনিসুর রহমান :

দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর পশ্চিমাকাশে শাওয়ালের এক ফালি চাঁদ ঈদের সওগাত নিয়ে আসছে। “ও ভাই রমজানের ওই রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ”। এই দিনটির জন্য শহর, নগর ও গাঁ-গেঁরামের ধনী গরীব সবাই থাকিয়ে থাকে। ঈদের আর মাত্র কয়েকদিন বাকি। কর্মব্যস্ত শহরের মানুষ ইট পাথরের খাঁচা ছেড়ে ঈদের ছুটিতে যাচ্ছে নারীর টানে গ্রামের দিকে। রাস্তায় হাজার বিড়ম্বনার শিকার হয়েও স্বজনের সান্নিধ্য পেতে কষ্টকে কষ্ট মনে করছে না কেউ। যেখানে যার নারী পোতা রয়েছে। সেই মা-মাটি মানুষের কাছে যেতে কার না ইচ্ছা করে। বাল্যকালের হাজার স্মৃতি বিজড়িত সবুজে ঘেরা গ্রাম। মায়ের পরশ, পিতার ¯েœহ, বোনের আদর, ভাইয়ের সোহাগ আর বাল্যকালের খেলার সাথীদের মান-অভিমানের ভালবাসা ভেসে উঠে মনের কোণে। ঈদ মানেই খুশি। খুশিটা তাদের জন্য যারা আল্লাহকে খুশি করার জন্য দীর্ঘ একটি মাস রোজা রেখে আল্লাহর ইবাদতে মশগুল ছিলেন। হে রহমানের রহিম আপনি আমাদের গুনাহ্গার বান্দার প্রতি পবিত্র রমজান মাসের রহমত নাযিল করুন। হে দিন দুনিয়ার মালিক আপনি আমাদের প্রতি আপনার শান্তি বর্ষন করুন। তোমার কাছে দু’হাত তুলে মাগফিরাত কামনা করছি। হে আল্লাহ। হে আল্লাহ আমি আপনার সন্তুষ্টির জন্য রোজা রেখেছি এবং আপনারই দেয়া রিযিক দ্বারা ইফতার করেছি। আপনি আমাদের সকলকে বিপদ-আপদ থেকে মুক্ত করুন। এক মাস সংযম এর পর মুসলিম জীবনে এক অনাবিল আনন্দের মহাসম্মিলন ঘটে ঈদ-উল-ফিতরে। সেই ঈদকে কেন্দ্র করে ঘরমুখী মানুষের বাড়ি ফেরায় বড় চ্যালেঞ্জ। এমনিতেই লঞ্চগুলোতে বাড়তি যাত্রী তার ওপরে বাড়তি ঝড়ো হাওয়া। সবমিলিয়ে এবার বড় বেশি চ্যালেঞ্জ ঘরে ফেরা মানুষের জন্য। তাই সকলে আরো একটু সচেতন ও ধৈর্য্যশীল হলে দূর্ঘটনার ঝুঁকি এড়িয়ে চলা সম্ভব। প্রতি বছরই লঞ্চ ও সড়কপথে দূর্ঘটনায় বিরাট একটি সংখ্যার মানুষ আমাদেরকেই হারাতে হয়। ঈদে বাড়ি ফেরা মানুষের আনন্দের মাত্রা যেন দ্বিগুনত্ব পায় সেই আশা ব্যক্ত করি।

মুসলমানদের ঐক্যের পথে, কল্যাণের পথে, ত্যাগ ও তিতিক্ষার মূলমন্ত্রে দীক্ষিক করে ঈদ-উল-ফিতর। এ দিনের সবচেয়ে উজ্জ্বল দিক হলো সামর্থ্যবানদের দ্বারা ফিতরা-সদকার মাধ্যমে গরিবের হক আদায় করা। এতে অর্থনৈতিক বৈষম্য দূর হয়, তেমনি সামাজিক দায়বদ্ধতা প্রকাশ পায়। অন্যদিকে ঈদগাহে ধনী-গরিব নির্বিশেষে এক কাতারে নামাজ আদায় শেষে কোলাকুলির মাধ্যমে স্থাপিত হয় মহান এক সামাজিক বন্ধন। অন্যায়, অবিচার, ঘৃণা, বিদ্বেষ, হিংসা মানুষের সব নেতিবাচক প্রবণতার রাশ টেনে ধরবে। ঈদ যে আনন্দের বার্তা বয়ে এনেছে, তার নিছক আনুষ্ঠানিকতা নয়, ঈদ হোক জীবনকে নবায়ন করার আহবান।

লেখক –
কাজী আনিসুর রহমান
সাধারণ সম্পাদক
ফতুল্লা রিপোর্টার্স ক্লাব