বিএনপির প্রত্যেকটি দাবি জনবিচ্ছিন্ন, ব্যক্তিগত ক্ষমতায় যাওয়ার কৌশল-হানিফ

সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৮ ৩:০৭ দুপুর

নিউজ ডেক্সঃ

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, ২০১৩ সালে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হবার পর থেকে বিএনপি-জামায়াত বিচার বন্ধ করার জন্য সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করেছিল।

তিনি বলেন, ২০১৫ সালে দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য, দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করার জন্য পেট্রোল বোমা সন্ত্রাস চালিয়েছিল। বহু মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করেছিল। কিন্ত তাদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়নি।

তিনি আরো বলেন, বিএনপির প্রত্যেকটি দাবি জনবিচ্ছিন্ন, ব্যক্তিগত ক্ষমতায় যাওয়ার কৌশল। তাই বিএনপির দাবির প্রতি জনগনের সমর্থন না থাকায় তারা কোনো আন্দোলনে গড়ে তুলতে পারে নাই।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের কর্মচারীদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে ‘বর্তমান সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন সুষ্ঠ হবে না’ বিএনপি নেতা মওদুদ আহমেদের মন্তব্যের প্রেক্ষিতে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

হানিফ বলেন, আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি বাংলাদেশ ছেড়ে আমেরিকায় চলে গেছে। তারা এখন লবিষ্ট নিয়োগ করে বিদেশিদের কাছে ধর্ণা দিয়েছে। একমাত্র রাজনৈতিকভাবে দেওলিয়া হলেই কেউ লবিষ্ট নিয়োগ করে বিদেশীদের কাছে ধর্ণা দিতে পারে। এতে প্রমানিত হয়েছে এদেশের জনগণের প্রতি বিএনপির আস্থা নেই। ষড়যন্ত্রের প্রতিই তাদের আস্থা।

তিনি বলেন, বিএনপি ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতায় যেতে চাই। বাংলাদেশের মানুষ কখনোই তাদের এ স্বপ্ন বাস্তবায়ন হতে দেবে না।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে হানিফ বলেন, বাংলাদেশের সেরা চিকিৎসকদের নিয়ে মেডিকেল বোর্ড গঠন করে বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা করা হচ্ছে। এর বাইরে উনার ব্যক্তিগত চিকিৎসক কোন পর্যায়ে আছে যে উনি দেশের চিকিৎসকদের প্রতি আস্থা রাখতে পারছেন না। এর মাধ্যমে প্রমাণিত হয় তারা চিকিৎসা নিয়ে রাজনীতি করতে চাইছে।

এ সময় কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ কাজী মনজুর কাদের, কর্মচারী পরিষদের নেতারাসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।