ভিত্তিমূল ২০ লাখ রুপি থেকে বরুণ চক্রবর্তীর ৮ কোটি ৪০ লাখ রুপি!

ডিসেম্বর ১৯, ২০১৮ ১২:২২ দুপুর

স্পোর্টস ডেক্সঃ

এবারের আইপিএল নিলামে সবচেয়ে বড় চমক বরুণ চক্রবর্তী। তার ভিত্তিমূল ছিল মাত্র ২০ লাখ রুপি। দিল্লী ক্যাপিটালস এবং চেন্নাই সুপার কিংস প্রথমে নিলামে অংশ নেয়। ধীরে ধীরে চড়া হতে থাকে তার দাম। এরপর কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব ও কলকাতা নাইট রাইডার্সও অংশ নেয়। ৮ কোটি ৪০ লাখ রুপি বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ১০ কোটি (৯ কোটি ৯৯ লাখ টাকা) দিয়ে এ স্পিনারকে শেষ পর্যন্ত দলে টানে পাঞ্জাব।

কিছুদিন আগেই মাইক হাসি বরুণকে উপাধি দিয়েছেন ‘নতুন রহস্য স্পিনার’। মাদুরাই প্যান্থার্সকে তামিলনাড়ু প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা জেতানো বরুণ প্রথমবারের মতো আইপিএল খেলতে এসেই ঝড় তুলেছেন।

ক্রিকেট খেলার শুরু যদি বলা হয়, তাহলে শৈশব থেকেই বল করার চাইতে উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে বল ধরাতেই বেশি আগ্রহ ছিল বরুণের। ১৩ বছর বয়স থেকে ক্রিকেট মাঠে আসা-যাওয়া বরুণের। তখন উইকেটকিপারই হতে চাইতেন এবং ১৭ বছর বয়স পর্যন্ত খেলেছেন কিপিং গ্লাভস হাতে। কিন্তু দলে খুব একটা সুযোগ পেতেন না। বয়সভিত্তিক দলগুলো থেকে বেশ কয়েকবার প্রত্যাখ্যাত হওয়ায় বরুণ রাগে ক্রিকেটই ছেড়ে দিয়েছিলেন!

মা–বাবার বাধ্য সন্তানের মতোই বরুণ ক্রিকেট ছেড়ে মনোযোগ দিয়েছিলেন পড়াশোনায়। লেখাপড়ায় তার মাথাও ছিল খুব ভালো। চেন্নাইয়ে এসআরএম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থাপত্যকলায় ডিগ্রিও নিয়েছেন। খেলাধুলার সঙ্গে তত দিনে সম্পর্ক শেষ বললেই চলে। কিন্তু মনে মনে ক্রিকেটের প্রতি ভালোবাসা দাবিয়ে রাখতে পারেননি। স্থাপত্যকলায় পড়াশোনার পাশাপাশি পাড়ার টেপ টেনিসে সুনাম কুড়িয়েছিলেন ভালোই।

পাঁচ বছরের পড়াশোনা শেষে স্থাপত্যবিদ হিসেবে স্বাধীনভাবে কাজ করছিলেন বরুণ। কিন্তু সময় গড়ানোর সঙ্গে বরুণ বুঝতে পেরেছিলেন, এই জায়গা আসলে তার জন্য নয়। এই স্থাপত্যকলায় বন্দী থাকা তার পক্ষে সম্ভব না। তার ধ্যানজ্ঞানে আসলে ক্রিকেট মাঠ। বরুণ বুঝে ফেলেছিলেন ২২ গজেই তার প্রতিভার বিকাশ ঘটবে, স্থাপত্যকলায় নয়। তাই স্থাপত্যকলার কাজ পুরোপুরি ছেড়ে দিয়ে যোগ দিলেন ক্রমবেস্ট ক্রিকেট ক্লাবে। তবে বরুণ এবার আর আগের পথে হাঁটেননি, উইকেটরক্ষক থেকে হয়ে যান সিমার অলরাউন্ডার।

কিন্তু বরুণকে আবারও হতাশ হতে হয়। সিমার হিসেবে মাত্র দুই ম্যাচ খেলার সুযোগ হয়েছিল, আসলে তা এক ম্যাচ। দ্বিতীয় ম্যাচে খেলতে গিয়েই হাঁটুর চোটে ছিটকে পড়তে হয় মাঠের বাইরে, সেটি ছয় মাসের জন্য। বরুণের মনে তখনো একটা ভাবনা এসেছিল, সিদ্ধান্ত নিতে ভুল হলো না তো?

বরুণ ভাবনাটা নিজের মাঝেই ধরে রেখেছিলেন। এরপরই আসে পরিবর্তন। পেসার থেকে স্পিনার। চোট থেকে ফেরার পর তিনি নিজেকে পুরোপুরি পাল্টে ফেললেন। চেন্নাই লিগের চতুর্থ ডিভিশনে জুবিলি ক্রিকেট ক্লাবে যোগ দিলেন স্পিনার হিসেবে। এবার সাফল্য ধরা দিল। ২০১৭-১৮ মৌসুমে ৮.২৬ গড়ে, ৩.০৬ রান রেটে তুলে নিলেন ৩১ উইকেট। রান পেলেন ব্যাটিংয়েও। সেই মৌসুমে জুবিলি ক্রিকেট ক্লাবের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকও বরুণ!

সেই মৌসুমেই সবার নজর কেড়ে নেন বরুণ। এতে ডাক পান আইপিএলের নেটে। চেন্নাই সুপার কিংসের নেটে ছিলেন চার দিন। তখন তাকে পছন্দ করে ফেলেন অস্ট্রেলিয়ার সাবেক ব্যাটসম্যান মাইক হাসি।