বিশ্বনাথ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চমক দেখাতে প্রস্তুত আছকির আলী

January 5, 2019 2:59 pm

ওয়াসীম আকরাম বিশেষ প্রতিনিধি :-

আছকির আলী কেন্দ্রীয় স্চ্ছোসেবক দলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও সিলেট জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা ও ছিলেন। তবে তার সবচেয়ে বড় পরিচয় হলো তিনি বিএনপির নিখোঁজ সাংগঠনিক সম্পাদক, সাবেক সংসদ সদস্য ও সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি এম ইলিয়াস আলীর ছোট ভাই আছকির আলী।

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সিলেট জেলার বিশ্বনাথ উপজেলায় ইলিয়াস পরিবারের কেউ প্রার্থী হবেন বলে মনে করছেন স্হানীয় বিএনপির নেতাকর্মীরা। এক্ষেত্রে নিখোঁজ বিএনপি নেতা এম ইলিয়াস আলীর ছোট ভাই এম আছকির আলী।
আসন্ন নির্বাচনে চমক দেখাতে প্রস্তুত
এলাকার সাধারণ মানুষও তার সান্নিধ্য পেয়ে আপ্লুত। নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার জন্য দাবি জানিয়েছেন তৃণমূলের সাধারণ মানুষ। তিনিও সাড়া দিয়েছেন।

ইলিয়াস আলীর ভালবাসার কারণে এলাকার অসংখ্য নেতাকর্মী নানাভাবে নির্যাতিত হয়েছেন। বিশ্বনাথে প্রতিটি ঘরে ঘরে ইলিয়াস আলী তার সৈনিক তৈরি করে রেখে গেছেন। তিনি বিএনপি নেতাকর্মীদের বিএনপির আদর্শে লালিত হওয়ার ট্রেনিং দিয়ে গেছেন। তার প্রমাণ বিশ্বনাথবাসী ইলিয়াস আলী গুমের পর দেখিয়েছেন। ইলিয়াস আলী নিখোঁজের পর বিশ্বনাথে তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলেছিলেন। সেই আন্দোলনে আমাদের তিন ভাই প্রাণ দিয়েছিল। বাংলাদেশে ইতিহাসে এটা বিরল। সে কারণে বাংলাদেশের মানুষ বিশ্বনাথ উপজেলাকে অন্যভাবে দেখে ও মূল্যয়ন করে। কারণ এটা ইলিয়াস আলীর এলাকা। ২০১২ সালে ইলিয়াস আলী নিখোঁজ হলেও আলোচিত এই উপজেলাটি এখন ‘ইলিয়াস আলীর বিশ্বনাথ’ বলে পরিচিতি লাভ করেছে।

উল্লেখ্য একাদশ সংসদ নির্বাচনে সিলেট-২ আসনে (বিশ্বনাথ-ওসমানীনগর) বিএনপির প্রার্থী বিএনপির নিখোঁজ নেতা ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনার মনোনয়ন স্থগিত হওয়ায় বিএনপির পাশাপাশি এলাকার সাধারণ মানুষও তার জন্য নিরবে চোখের জল ফেলেছেন।

২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল ঢাকা বনানী থেকে নিখোঁজ হন সিলেট-২ আসনের সাবেক এমপি ও বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলী ও তার গাড়ি চালক আনসার আলী। ইলিয়াস নিখোঁজের খবর তার নির্বাচনী এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে তখন দলীয় নেতাকর্মীর সঙ্গে এলাকার সাধারণ মানুষও কান্নায় ভেঙে পড়েন। কিন্তু আজও তার কোনো সন্ধান মেলেনি। এখন তার ফিরে আশার অপেক্ষার প্রহর গুনছেন বিএনপি নেতারা। ইলিয়াস আলী নিখোঁজের পর তার নির্বাচনী এলাকায় বিএনপিকে আরো সুসংগঠিত করতে হাল ধরেন তার স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা। ইলিয়াসের স্ত্রীকে কাছ পেয়ে বিএনপি নেতারা উজ্জীবিত ছিলেন। দলীয় নেতাকর্মীরা ইলিয়াসের অবর্তমানে তার স্ত্রী লুনাকে নিয়ে তারা অনেক স্বপ্ন দেখছিলেন। একাদশ জাতীয় নির্বাচনে সিলেট-২ আসনে লুনাই হবেন এমপি এমন মনোভাব দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে দেখা গিয়েছিল।কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে তাহসিনা রুশদীর লুনা’র প্রার্থীতা স্থগিত করে হাই কোর্ট। একই আসনে মহাজোটের প্রার্থী (জাপা) সাবেক সংসদ সদস্য ইয়াহইয়া চৌধুরীর করা এক রিট পিটিশনের শুনানি নিয়ে এই আদেশ দেন হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ।এরপর থেকেই নেতাকর্মিরা হতাশায় নিমজ্জিত হঠাত্ করেই বিএনপি সমর্থন জানায় গণফোরামের প্রার্থী মোকাব্বির খানেকে এলাকার নতুন মূখ হওয়ার পরও মাত্র দুইদিন সময়ে সিলেট-২ আসনের সতন্ত্র প্রার্থী মোকাব্বির খান বিজয় লাভ করেন এর নেপথ্যে কারিগর ছিলেন আছকির আলী।মাত্র একদিন নির্বাচনী মাঠে সুর্য প্রতিকে ভোট দিয়ে তার ভাই এম ইলিয়াস আলী নিখোঁজের জবাব দেওয়ার জন্য আহবান জানিয়ে ঝাঁঝালো বক্তব্য দেন। তার কারিশমায় এ বিজয় আসে বলে মনে করছেন সাধারণ মানুষ।

Please follow and like us: