পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য বহুতলবিশিষ্ট আবাসিক ভবন নির্মাণ প্রকল্প উদ্বোধন করেন ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম।

সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯ ৫:০৬ দুপুর

।। নিউজ ডেক্স:।।

রাজধানীর গাবতলী এলাকায় বসবাসরত পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের (সুইপার) জন্য বহুতল ভবন নির্মাণ করতে যাচ্ছে ঢাকা উত্তর সিটি কপোরেশন (ডিএনসিসি)। সুইপার কলোনি হিসেবে পরিচিত ডিএনসিসির পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য ১৫ তলার চারটি ভবন গড়ে তোলা হবে। একই সঙ্গে গড়ে উঠবে চার তলা স্কুল ভবন।

বুধবার দুপুরে গাবতলী সিটি পল্লীতে বহুতলবিশিষ্ট আবাসিক ভবন নির্মাণ প্রকল্প উদ্বোধন করেন ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম।

মেয়র বলেন, ‘৭ মার্চ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে শপথ পড়ানোর পর, তিনি আমাকে আমাদের পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য আবাসনের ব্যবস্থা করতে নির্দেশ দেন। পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য যে পরিকল্পিত, আধুনিক আবাসস্থল হবে তা বঙ্গবন্ধু সেই সময়েই পরিকল্পনা করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, প্রত্যেকটি পরিবারের জন্য একটি করে দুই রুমে বাসা থাকবে। যা সে সময়ের সচিবরাও চিন্তা করতে পারত না।’

টিকাটুলিতে পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের জন্য বিএনপি সরকারের সময় আবাসন নির্মাণ করা হয়েছিল। যেখানে ক্লিনাররা পরিবার নিয়ে ওঠার আগেই ভবনে ছাদ ভেঙে পরে। এঘটনা মনে করিয়ে গাবতলী পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য নেয়া প্রকল্পে যেন এমন ঘটনা না ঘটে এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন উত্তরের মেয়র।

ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হাইয়ের সভাপতিতে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা-১৪ আসনের সংসদ সদস্য আসলামুল হক।

অনুষ্ঠানে মেয়র জানান, ২২১ দশমিক ৪৯ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি হাতে নেয়া হয়েছে। প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে চারটি ১৫ তলা ভবন, চার তলা বিশিষ্ট একটি স্কুল। এছাড়া অভ্যন্তরীণ সড়ক ও ড্রেনেজ লাইম নির্মাণ এবং বৃক্ষরোপণ কার্যক্রমও রয়েছে এই প্রকল্পের মধ্যে। এই নির্মাণ প্রকল্পের কাজ ২০২১ সালের জুন মাসে শেষ হবে বলে জানানো হয়। প্রকল্পের আওতায় করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা পাচ্ছেন ৫৬২ বর্গ ফুট আকারের ফ্ল্যাট।
গাবতলী সুইপার কলোনি হিসেবে পরিচিত পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের সন্তানদের জন্য সেখানে কোনো সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নেই। স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সুইপার কলোনির সন্তানদের বাইরের অন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি নেয়া হয় খুব কম। স্কুলে ভর্তি হতে পারলেও তাদের সঙ্গে অন্য শিক্ষার্থীরা মিশতে চায় না। প্রকল্পের আওতায় যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মাণের কথা বলা হচ্ছে, তা সম্পন্ন হলে সুইপারও অনেকাংশে এগিয়ে যাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদ আহমেদ, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী ও প্রকল্প পরিচালক মো. শরীফ উদ্দিন, আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা সালেহা বিনতে সিরাজ, ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মুজিব সারোয়ার মাসুম, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর রাজিয়া সুলতানা ইতিসহ ডিএনসিসির বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের সংগঠনের নেতারা।