দিনাজপুরের খানসামার আশরাফ চিটার টাঙ্গাইলে ভুয়া যুগ্ম সচিব পরিচয় একবছর কারাদন্ড

নভেম্বর ২, ২০১৯ ৪:২৬ দুপুর

তারিকল ইসলাম চৌধুরী ,খানাসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধি-

দিনাজপুর জেলার খানসামা উপজেলার আশরাফ আলী খান টাঙ্গাইলে জেলা প্রশাসকের (ডিসি) কার্যালয়ে ভুয়া যুগ্ম সচিবসহ দুই জনকে আটক করা হয়েছে। তাদেরকে কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে। যুগ্ম সচিব পরিচয় প্রদানকারী প্রতারক আশরাফ আলী খানকে এক বছর ও সহযোগী মুমিন আকন্দকে এক মাসের কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুখময় সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করেন। যুগ্ম সচিব পরিচয়দানকারী আশরাফ আলী খান দিনাজপুর জেলার খানসামা উপজেলার কৌগা (পাঠানপাড়া) গ্রামের মৃত ইসমাইল হোসেনের ছেলে। অপর সহযোগী মুমিন আকন্দ গাজীপুর জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার উত্তর খইবাড়া গ্রামের হেলাল উদ্দিনের ছেলে। সুখময় সরকার জানান, গতকাল বুধবার (৩০ অক্টোবর) সন্ধ্যায় আশরাফ আলী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আসেন। যুগ্ম সচিব পরিচয় দিয়ে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে দেখা করতে চান। তখন গণশুনানি চলছিল। জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের গোপনীয় শাখার কর্মচারীদের সন্দেহ হয়। তারা তাকে অপেক্ষা করতে বললে তিনি আরও উত্তেজিত হন। একপর্যায়ে গোপনীয় শাখার কর্মচারীদের হুমকি-ধামকি দেন। জোর করে জেলা প্রশাসকের কক্ষে প্রবেশ করেন। এসময় জেলা প্রশাসকের সন্দেহ হলে জেলা প্রশাসক পুলিশ ও তার কার্যালয়ের কর্মরত কর্মকর্তাদের ডাকেন। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও টাঙ্গাইল সদর থানার সহযোগিতায় এই প্রতারক চক্রের মুখোশ বেরিয়ে আসে। বাইরে অপেক্ষমাণ প্রতারক চক্রের অপর সদস্য মুমিন আকন্দকে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি স্বীকার করেন, আশরাফ বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে চাকরির কথা বলে টাকা হাতিয়ে নেয়। টাঙ্গাইলে ভুয়া যুগ্ম সচিবের আশরাফ আলী খান গ্রেফতার ও সাজাপ্রাপ্ত হয়েছে বলে তার প্রতারণার শিকার সাধারণ মানুষ তার কঠোর শাস্তির দাবী করেছেন। প্রতারিত হওয়া সাধারণ মানুষের অনেকেই চাকরীর জন্যে খানসামা উপজেলা থেকে প্রায় ৫০ লাখ টাকা নেউলা গ্রামের এক ব্যাংক কর্মচারী ও খানসামা চিরির বন্দরের দুই নবীন সাংবাদিককে নিয়ে এই সব লোকজনের নিকট টাকা হাতিয়ে নেন। উল্ল্যেখ্য আশরাফ আলী খান খানসামা উপজেলার মানুষের কাছে আশরাফ চিটার নামে পরিচিত। তার চিটারীর নিউজ ফেসবুক থেকে শেয়ার করায় খানাসামা উপজেলার দুই সাংবাদিক চৌধুরী নুপুর নাহার তাজ, সাংবাদিক তাজ ফারাজুল ইসলাম চৌধুরী ও বিএনপির খানসামা উপজেলার বিপ্লবী নেতা রবিউল ইসলাম তুহিন কে আসামী করে ৫৭ ধারার মামলা করেছিল এই চিটার। সারা দেশে এই আশরাফ আলী খানের কাছে হাজারো মানুষ প্রত্যারণার শিকার, তাদের জোর দাবী এই চিটারের কঠিন শাস্তি। তার সাথে প্রতারিত মানুষের অর্থ উদ্ধার করতে আইনি সহযোগিতা সবার কাম্য।