সবার ভালবাসা নিয়ে আমি বেশ মুগ্ধ, ফিরে আসতে চাই ভালভাবে-সাকিব

January 24, 2020 12:14 am

স্পোর্টস ডেক্সঃ

জুয়াড়ির কাছ থেকে পাওয়া ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব গোপন রাখার কারণে আইসিসি কর্তৃক দুই বছরের জন্য (শর্ত সাপেক্ষে এক বছর) নিষিদ্ধ হওয়ার পর সাকিব অনেকটা লোক চোক্ষের আড়ালে চলে গেছেন। নিষিদ্ধ হওয়ার পর প্রায় তিন মাসের মতো তার তেমন কোনো খবরই ছিল না। গতকাল তিনি আবার এসেছেন সবার সামনে।

লাইফবয়ের সাথে ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডরের চুক্তি নবায়ন করতে এসে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন। যা ছিল ক্রিকেট নিয়ে। পাঠকদের জন্য সেসব কথার উল্লেখযোগ্য অংশ।

প্রশ্ন: এই সময়ে সাকিব নিজেকে কিভাবে তৈরি করছেন?

সাকিব: সেটার জন্য অপেক্ষা করতে হবে আপনাদের আমি ফিরে আসা পর্যন্ত। বললাম আমি অনেক কিছু করে আসছি এবং আসার পর কিছু প্রমাণিত হলো না সেটার ফল ভালো হবে না, গ্রহণযোগ্যও হবে না। অপেক্ষা করেন সব ঠিকঠাক থাকলে উত্তর সময়ই বলে দেবে।

প্রশ্ন: ক্রিকেট কি মিস করছেন?

সাকিব: একটা জিনিসের সঙ্গে যদি আপনার সম্পৃক্ততা থাকে সেটা আপনার পছন্দের হোক, না পছন্দের হোক, আপনি সেটাকে মিস করবেন এটা খুবই স্বাভাবিক। আমার ক্ষেত্রেও ভিন্ন কিছু না।

প্রশ্ন: বাইরের জীবন কেমন কাটছে?

সাকিব: এই জিনিসগুলো আমি খুব একটা শেয়ার করতে চাই না। যদি ওরকম কোনো পরিস্থিতি আসে, তখন যদি মনে হয় শেয়ার করা দরকার তখন করব।

প্রশ্ন: আপনার সময় কাটে কি করে?

সাকিব: আসলে সবকিছু বাদ দিয়ে যেহেতু একটা কাজের সঙ্গে জড়িত ছিলাম, এখন যেহেতু কাজটা নেই। অন্যসব কাজ করার সুযোগ হচ্ছে।

প্রশ্ন: ওয়ার্নার-স্মিথের বাতিল হলো চুক্তি, আপনার এন্ডোরমেন্ট হচ্ছে বেশি?

সাকিব: একটু আপনি চেষ্টা করেন কারণ খুঁজে বের করার।

প্রশ্ন: নিষিদ্ধ খেলোয়াড়ের প্রতি মানুষের প্রচুর ভালোবাসা কতটা এনজয় করেন?

সাকিব: বাংলাদেশে অনেকবারই শুনেছেন কিংবা এই কথা প্রচলিতও আছে জীবিত থাকতে মর্মটা বোঝা যায় না। আমার ক্ষেত্রে যেটা হয়েছে আমি জীবিত থাকতে মর্মটা বুঝতে পারছি। আমি খুশি, যেহেতু সবার ভালোবাসা আছে। এখানে আমার দায়িত্বটা বেড়ে যায় স্বাভাবিকভাবে। আমি চেষ্টা করব এই দায়িত্বটা পালন করতে।

প্রশ্ন: কোচের সঙ্গে কথা হয়?

সাকিব : কথা হয় আমার নিয়মিত। প্রধান কোচের সঙ্গে কথা তো হয়ই। সব সময় কোচিং স্টাফের সঙ্গে কথা হলে যে খেলা নিয়েই হবে এমন না। কিন্তু অনেকের সঙ্গেই যোগযোগ আছে।

প্রশ্ন: আপনি নিষিদ্ধ থাকার পরও অ্যাম্বাসেডর হওয়াতে সেই ব্র্যান্ডের উপর প্রভাব পড়বে কি না?

সাকিব : আমাদের সম্পর্কটা এমন একটা জায়গায় এসে পৌঁছেছে যে এন্ডোরসমেন্ট বা পারসোনাল কোনো সমস্যা, কনফ্লিক্ট তৈরি হবে না। একটা ব্র্যান্ডের সঙ্গে তখন পরিবারের মতো সম্পর্ক তৈরি হয়ে যায়। অন্যকিছু ভাবার সুযোগ নেই।

প্রশ্ন: পাকিস্তান সফর নিয়ে আপনার ভাবনা কি?

সাকিব: আমি আশা করি সবাই যেন নিরাপদে যেতে পারে এবং খেলে ফিরে আসতে পারে। অবশ্যই বাংলাদেশের জন্য সাফল্য নিয়ে আসতে পারে। শ্রীলঙ্কা শেষবার যখন গেল ৩-০ তে জিতে এসেছে । তো আমাদেরও ভালো ফল করা উচিত।

Please follow and like us: