৯৯৯ এ ফোন করে গণধর্ষণ থেকে রক্ষা পেল তরুণী

January 29, 2020 12:06 pm

অনলাইন ডেক্সঃ

রাত ২টা ৫৬ মিনিট। জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ ফোন করেন এক কিশোরী (১৭)। ভয়ার্ত কণ্ঠে তাকে উদ্ধারের আকুতি জানান। সঙ্গে সঙ্গে ৯৯৯-এ দায়িত্ব পালনকারীরা চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থানা পুলিশকে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার বার্তা পাঠান। এর পর সেই গভীর রাতেই চলে অভিযান এবং উদ্ধার করা হয় কিশোরীকে। গত সোমবার দিনগত রাতের ঘটনা এটি। কিশোরীকে উদ্ধারের পাশাপাশি অপকর্মের জন্য সেখানে তাকে নিয়ে গিয়েছিলেন যে নারী তাকে এবং ধর্ষণের উদ্দেশে সেখানে জড়ো হওয়া তিন যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

৯৯৯ কর্তৃপক্ষ জানায়, ভিকটিম কিশোরী ফোন করে জানান, চট্টগ্রামের পতেঙ্গা থানার কাঠগড়ের একটি বাড়িতে চাকরি দেওয়ার কথা বলে তাকে আটকে রাখা হয়েছে। তাকে ধর্ষণ করা হতে পারে বিষয়টি আঁচ করতে পেরে বাথরুমে গিয়ে কৌশলে ৯৯৯-এ ফোন করেন তিনি; উদ্ধারের জন্য অশ্রুরুদ্ধ কণ্ঠে আকুতি জানান। ৯৯৯ কর্তৃপক্ষ তাৎক্ষণিকভাবে পতেঙ্গা থানার ডিউটি অফিসারের কাছে জরুরি বার্তা পাঠানোর পর পতেঙ্গা থানার এসআই মো. সুমন তার টিম নিয়ে তৎক্ষণাত ছুটে যান ঘটনাস্থলে। অভিযানে নেতৃত্বদানকারী এ পুলিশ কর্মকর্তা জানান, কাঠগড়ের ওই বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ভিকটিম কিশোরীকে উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় তাকে আটকে রেখে ধর্ষণের পরিকল্পনার অভিযোগে ইয়াসমিন আক্তার, রনি দত্ত (২৩), মো. জোবায়ের (২৮) ও নেয়ামত (৩৮) নামে চারজনকে আটক করা হয়।

কিশোরী জানান, চাকরির সন্ধানে তিনি চট্টগ্রাম এসেছিলেন। সেখানে তার সঙ্গে পরিচয় হয় ইয়াসমিন আক্তারের। ইয়াসমিনই তাকে চাকরি দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে ওই বাসায় ডেকে নেন। পরে সেখানে তাকে ধর্ষণ করার জন্য ওই তিন যুবক জড়ো হন। তাৎক্ষণিক সাড়া দিয়ে উদ্ধার করে বড় ধরনের বিপদের হাত থেকে রক্ষা করায় ৯৯৯ কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান ভিকটিম কিশোরী।

এ বিষয়ে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এর প্রধান অতিরিক্ত ডিআইজি তবারক উল্লাহ বলেন, জরুরি প্রয়োজনে ২৪ ঘণ্টা সব ধরনের সেবা দিতে প্রস্তুত থাকি আমরা। যে কেউ বিপদে পড়লে বা বিপদ আঁচ করতে পালে সঙ্গে সঙ্গে ৯৯৯-এ ফোন করার অনুরোধ জানান তিনি।

Please follow and like us: