মাদক সেবনে বাঁধা ও চাদাঁ না দেওয়ায় শরীফকে হত্যা করলো কিশোর গ্যাং

April 1, 2020 11:13 pm

মোঃ খোকন প্রধান, স্টাফ রিপোর্টার

মাদক সেবনে বাধাঁ ও চাদাঁ না দেওয়ায় নারায়নগঞ্জের শরীফকে হত্যা করলে কিশোর গ্যাংয়ের ২৫/৩০ জন সন্ত্রাসী এমনি অভিযোগ নিহতের পরিবারের। এদিকে শরীফ হত্যার কিলিং মিশনের ঘটনাটির একটি সিসি টিভি’র ফুটেজ উদ্ধার করেছে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ।

এতে দেখা গেছে মাত্র ২/৩ মিনিটে ২০/২৫ জনের একটি কিশোর গ্যাং প্রকাশ্য দিবালোকে ব্যবসায়ী শরীফ কে কুপিয়ে হত্যাঁ করেন। নাঃগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( ক সার্কেল) মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী জানায়, ঘটনাস্হলের আশে পাশের একটি বাড়ীর সিসিটিভি আমরা উদ্ধার করেছি এতে দেখা গেছে রামদা, ছোড়াঁ, লাঠি সোঠা নিয়ে ২৫/৩০ জনের একটি কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা অতর্কিত ভাবে হামলা চালায় শরীফের উপর এক পর্যায়ে তারা ছেলেটিকে কুপিয়েঁ হত্যা করেন, তিনি আরো বলেন, সিসিটিভির ফুজেট দেখে তাদের সনাক্ত করা হয়েছে তাদের আটকের চেষ্টা চলছে। উল্লেখ্য যে বুধবার ১ এপ্রিল সকাল ১০ টার দিকে নাঃগঞ্জের ফতুল্লা থানাধীন দেওভোগ আর্দশ পাড়া এলাকার ইলেকট্রিক ও ইন্টারনেট ব্যবসায়ী শরীফ হোসেন (৩০) কে প্রকাশ্য দিবা লোকে কুপিঁয়ে হত্যা করেন একটি কিশোর গ্যাং গ্রুপ, নিহত শরীফ হোসেন ৫ বছর সৌদি আরবে থাকার পরে গত ৬/৭ মাস পূর্বে দেশে আসেন এবং ৩ মাস পূর্বে সে পারিবারিক ভাবে বিয়ে করেন, নিহত শরীফ উক্ত এলাকার আলাল মাদবরের ছেলে বলে জানা গেছে।

এলাকা বাসীর সুত্রে জানা গেছে ফতুল্লা থানাধীন কাশীপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের বাড়ৈভোগ মসজিদ সংলগ্ন এলাকায় বৃষ্টি ইলেকট্রিক নামক একটি ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান খুলে সেখানে শরীফ টিভি, ফ্রী, হার্ড ওয়্যার সামগ্রীর পাশাপাশি ইন্টারনেটের ব্যবসা করে আসতেছিলো। কিছু দিন আগে স্হানীয় কিশোর গ্যাং হিসাবে পরিচিত বড় শাকিল, ছোট শাকিল, লালন, লিমন, ইমনদের সাথে ঝগড়া হয় শরীফের এর পরে স্হানীয় লোকজন এ বিষয়টি বিচার শালিসী করে উভয়ের মধ্যে সমাধান করে দিলেও কিশোর গ্যাং এ বিষয়টি মেনে নিতে পারে নি একারনে এ হত্যা কান্ডটি হতে পারে বলে তাদের ধারনা। এদিকে নিহত শরীফের পিতা আলাল মাতবর কান্না বিজড়িত কন্ঠে বলেন, স্হানীয় কিশোর গ্যাংয়ের নেতা শাকিল -লালন সহ তাদের লোকজন শরীফের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের সামনে বসে নিয়মিত মাদক সেবন করতো এটা আমার ছেলে নিষেধ করাই আমার ছেলের অপরাধ আর এ কারনে ওরা আমার ছেলে হত্যা করছে।

এদিকে শরীফের মরদেহ দেখতে আসা তার মা রহিমা বেগম কান্না বিজড়িত কন্ঠে জানায়, আমার ছেলে ইলেকট্রিক ব্যবসার পাশাপাশি ইন্টারনেট ব্যবসা চালু করে আর এই ব্যবসা থেকে ওরা চাদাঁ দাবী করেছিলো ওদের চাদাঁ না দেওয়ায় শরীফের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে বসে এই সন্ত্রাসীরা মাদক সেবন করতো এতে বাধাঁ দিলে ওরা আমার ছেলে (শরীফ)কে বুধবার সকালে মোবাইল ফোনে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায় এবং প্রকাশ্যে কুপিঁয়ে হত্যা করে। ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আসলাম হোসেন জানায়, ঘটনাস্হলের পাশের একটি বাড়ীর সিসিটিভি আমরা উদ্ধার করেছি এবং উদ্ধারকৃত সিসি টিভির ফুজেট দেখে আমরা অনেক কে সনাক্ত করতে ফেলেছি, তাদের গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশের একাধিক টীম সাড়াঁশি অভিযান চালাচ্ছে।

Please follow and like us: