শুধু দেখছি আর ভাবছি- সরকার কি করছে!

April 8, 2020 3:02 pm

নিউজ ডেক্সঃ

আমরা আত্মহত্যার পথে যাচ্ছি। এ জন্য দোষ আমাদের। আমাদের প্রয়োজন, লোভ-লালসা, নিয়মানুবর্তিতা না মানা আমাদেরকে ভয়ংকর এক পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দিচ্ছে। সব শেষে এজন্য হয়তো কেউ বলবেন, সব দোষ সরকারের। এত লাশ……..মৃত্যুপুরী। সব কিছুর জন্য সরকার দায়ী।

একটু নিজের বিবেক দিয়ে ভাবুন—-দায়ী কে???

পুলিশ, সেনা বাহিনী, ভলেন্টিয়ার, রাজনৈতিক নেতা-কর্মীসহ স্বেচ্ছাসেবীরা প্রতিনিয়ত মাইক লাগিয়ে বলছে ঘরে থাকুন। কিন্তু আমি ও আমার সন্তান লাগামহীন। আমাদের প্রয়োজন বেশী বাইরে আসার। এ প্রয়োজন আর কারো নেই। এটাই মনে করি সকলে। এজন্য আমাদের পস্তাতে হবে।

সরকার টিভি, পত্রিকায় প্রতিনিয়ত সচেতনতামূলক প্রচার করছে। প্রধানমন্ত্রী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ঘুম নেই। প্রেসব্রিফিং, মিটিং, ব্যবস্থা গ্রহণ আর করোনা সামলাতে সকলে ব্যস্ত। সবাই বলছে একটা কথাই—ঘরে থাকুন। কিন্তু- লাভ নেই। আমাদের অনেক বেশী প্রয়োজন দোকান খোলা, তাজা সবজি, মাছ, মাংস খাওয়া। চায়ের দোকানে সিগারেট ফুকা। আর শুধু দেখছি আর ভাবছি- সরকার কি করছে।

টিভি চ্যানেলগুলোর ঘুম নেই। করোনা ঠেকাতে কত অনুষ্ঠান। সারাদিন শুধু করোনা আর করোনা। নিজ উদ্যোগে কত বিজ্ঞাপন। সাংবাদিকরা ঝুঁকি নিয়ে বাইরে আছেন। আমরা দেখছি, টিভি চ্যানেলে কি দেখায়। তবে, আমাদের শুধু দেখাটাই প্রয়োজন। টিভি চ্যানেলের সব মানতে হবে। বুঝতে হবে। দেখার দরকার দেখেছি। এটা টিভি চ্যানেলের ব্যাপার। কারণ, আমরা দেখছি কি হয়। আর চায়ের দোকানে বসে আড্ডা দিয়ে গল্প-গুজবে দিন কাটাচ্ছি। সরকারতো আছেই। শুধু দেখছি আর ভাবছি- সরকার কি করছে!

পুলিশের দায়িত্ব পুলিশ করছে। সাংবাদিক, ডাক্তার, ভলেন্টিয়ার যারা মাঠে আছে তাদের জীবনের ঝুঁকি কতটুকু ভেবেছেন। এই পুলিশ, ডাক্তার, সাংবাদিক করোনায় মরতে পারে। তার পরেও দায়িত্ব আপনাকে সুরক্ষার। কিন্তু আপনি??? শুধু দেখছি আর ভাবছি- সরকার কি করছে! পুলিশের কাজ পুলিশ করছে। সাংবাদিকের কাজ সাংবাদিক করছে। ডাক্তারের দায়িত্ব মানুষকে সুস্থ করার। আর আপনার দায়িত্ব, শুধু দেখা আর শোনা? শুধু দেখছি আর ভাবছি- সরকার কি করছে!

এলাকার ছেলেরা মিলে সুরক্ষার জন্য মাইকিং করছেন, লকডাউন বা বাঁশের বেড়া দিয়ে রাস্তা বন্ধ করেছেন? তবে আর উপায় নেই। সরকার কি বলেছে? খেয়ে কাজ নেই। এ্যাই ব্যাটা বাজার করবো না? খুলে দে বাঁশ—–আমরা এভাবেই বাঁশ খাচ্ছি! শুধু দেখছি আর ভাবছি- সরকার কি করছে!

আমরা আমাদের জন্যই আত্মহত্যার পথে যাচ্ছি। আমরা এত কিছুর পরেও সচেতন নই। বিশ্বকে দেখে আমরা এখনও শিখতে পারিনি। কারন, আমরা শিখতে চাই না। জানতে চাই না। মানুষ মরে যাক, আমি যাতে বেঁচে থাকি। শুধু দেখছি আর ভাবছি- সরকার কি করছে!

কিন্তু অবশেষে বাঁচবেতো?

একশ্রেণীর মানুষ নিজের জীবন বিপন্ন করে আপনাদের বাঁচাতে নিজেদের মৃত্যুকে বরণ করে নিয়েছে। আর আপনি— আমাদের মত্যুর মিছিলে যোগ করে দিচ্ছেন। সাথে এই মৃত্যুর মিছিলে যোগ করছেন আপনার পরিবার, সমাজ ও দেশকে। আচ্ছা– আপনার ছেলে-মেয়ে, বাবা-মা এদের দেখে মায়া হয় না? এদেরতো অন্তত: বাঁচতে দেবেন।

করোনা কাউকেই ছাড়ছে না। কার ভেতরে করোনার সংক্রমন তা লক্ষণ দিয়ে প্রকাশ পায় না। ভাববেন, আমি বা সে সবাই সুস্থ আছি। কিন্তু না, এ ধারনা ভুল। অতএব—সাবধান।

সাংবাদিক/কলামিস্ট তোফা সানীর ওয়াল থেকে সংগ্রহীত

Please follow and like us: