পূর্ব লাদাখে ক্রমশ বাড়ছে ভারতীয় এবং চিনা সেনা

May 26, 2020 10:58 am

আন্তর্জাতিক ডেক্সঃ

জিডিপি-র আয়তন এবং বৃহৎ প্রতিরক্ষা শক্তির কারণে চিনের সঙ্গে হাতির তুলনা করে থাকেন কূটনীতিবিদেরা। সেই সঙ্গে হাতির স্মরণশক্তির সঙ্গেও তুলনা করা হয় চিনা নেতৃত্বের। সম্প্রতি লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার কাছে বেজিং যে ভাবে রণমূর্তি ধারণ করছে তার পিছনেও রয়েছে পুরনো প্রসঙ্গ ভুলতে না পারা ও নিজেদের শক্তি প্রদর্শনের প্রয়াস—এমনটাই মনে করছেন বিশেষজ্ঞেরা।

পূর্ব লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার কাছে ক্রমশ বাড়ছে ভারতীয় এবং চিনা সেনা সমাবেশ। বিশেষজ্ঞদের মতে, গত বছর অগস্ট মাসে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহারের পরেই আকসাই চিন সম্পর্কে প্রথম লাল সঙ্কেত পেয়েছিল বেজিং, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের মন্তব্যে। তখন থেকেই নিজেদের ঘুঁটি সাজানো শুরু করেছিল তারা। মাঝে কোভিড নিয়ে নজর কিছুটা ঘুরলেও কালক্রমে তা সামলে নিয়ে আবার সীমান্তে প্রস্তুত করা হচ্ছে পিএলএ-কে।

গত বছর অগস্টে কাশ্মীর নিয়ে সিদ্ধান্তের পরেই সংসদে অমিত শাহ পাকিস্তান ও চিনের সঙ্গে সীমান্ত সমস্যার ব্যাপারে চড়া সুরে বলেন, ‘‘পাক অধিকৃত কাশ্মীর ও আকসাই চিনও ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ।’’

এর ঠিক পরেই এক বিবৃতিতে চিনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র হুয়া চুনইং বলেছিলেন, ‘‘ভারত-চিন সীমান্তের পশ্চিম দিকে থাকা চিনা ভূখণ্ডের ভারতভুক্তি নিয়ে সব সময় প্রতিবাদ জানিয়ে এসেছে চিন। সম্প্রতি অন্তর্দেশীয় আইন সংশোধন করে ভারত চিনের আঞ্চলিক সার্বভৌমত্ব খাটো করার ক্রমাগত চেষ্টা করছে। যেটা মেনে নেওয়া যায় না। এই চেষ্টা কোনও দিনই সফল হবে না।’’

গত কয়েক মাসে একাধিক বার বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল চিনা নেতৃত্বকে বুঝিয়ে এসেছেন যে জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে তা একান্তই ভারতের অভ্যন্তরীণ। কিন্তু পরিস্থিতি যে দিকে এগোচ্ছে তাতে স্পষ্ট, কূটনৈতিক দৌত্যে চিঁড়ে ভেজেনি।

উল্টে এ দিন ভারত-নেপাল সীমান্তে লিপুলেখ গিরিপথে রাস্তা তৈরি নিয়ে ভারতকে ফের তোপ দেগেছে নেপাল। চিনা মদতেই নেপাল ওই রাস্তা নিয়ে আপত্তি করছে বলে মন্তব্য করেছিলেন ভারতীয় সেনাপ্রধান এম এম নরবণে। নেপালি প্রতিরক্ষামন্ত্রী ঈশ্বর পোখরেলের বক্তব্য, ‘‘এই মন্তব্য করে ভারতীয় সেনার নেপালি গোর্খাদেরও অপমান করেছেন ভারতীয় সেনাপ্রধান।’’

Please follow and like us: