মেহেরপুরে করোনার অযুহাতে ছেলের হাতে বাবা লাঞ্ছিত

June 5, 2020 12:34 pm

কামাল হোসেন :

মেহেরপুর জেলার গাংনীতে ছেলেদের হাতে বাবা লাঞ্ছিত হয়েছে। এরকম ন্যাক্কার জনক ঘটনা ঘটেছে, গাংনী উপজেলার কুলবাড়ীয়া গ্রামে। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে এমন অযুহাতে বাবাকে মারধর করে বাড়ি থেকে বিতাড়িত করেছে ছেলে সজল ও সাগর। এমনকি বাবার মাথা গোঁজার ঠাঁই ছোট্ট কুঁড়ে ঘরটিও ভেঙ্গে দেয়া হয়েছ্ ে। বিচারের দাবিতে বিতাড়িত বাবা সাইফুল ইসলাম (৪৮) দ্বারে-দ্বারে ঘুরেও কোন কুল কিনারা পাচ্ছেন না। সাইফুল ইসলাম কুলবাড়ীয়া গ্রামের মৃত সুলতান আলীর ছেলে। বৃহস্পতিবার বিকেলে কুলবাড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার বিবরণে জানা গেছে, কুলবাড়ীয়া গ্রামের সাইফুল ইসলাম ১ম স্ত্রী ও ৩ ছেলে-মেয়েকে রেখে দীর্ঘ সময় ক্ষুদ্র ব্যবস্ার সুবাদে ঢাকাতে অবস্থান করে আসছিলেন। এমনকি সেখানে তিনি ২য় বিয়ে করে বসবাস করে আসছেন। গ্রামের বাড়ীতে মাঝে মধ্যে আসলেও সে ১ম স্ত্রীর কোন খোঁজ খবর রাখেন না। তারপরেও বাবা সন্তানের কল্যাণে তাকে বিদেশে পাঠানোর সময় ২য় স্ত্রীর নিকট থেকে ১ লাখ টাকা দেয়। সম্প্রতি প্রবাস ফেরত ছেলে সজল আলী (৩০) বাড়ীতে অবস্থান করছে। এই খবর পেয়ে বাবা টাকা ফেরত চাইতে সম্প্রতি ঢাকা থেকে বাড়ীতে আসেন। ছেলে সজল ও সাগর টাকার কথা অস্বীকার করে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বলে বাবাকে মারধর করে বাড়ি থেকে বিতাড়িত করে । বাবা সাইফুল ইসলাম বর্তমানে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

১ম স্ত্রী রেহেনা খাতুন জানান, অনেক আগে আমার ছোট্ট ছেলে-মেয়ের রেখে সে বাড়ি থেকে চলে গেছে। সে কোন দিন আমাদের কোন খোঁজ খবর নেয়না। কোন টাকা পয়সাও দেয়না। ২য় বিয়ে করে সেখানেই সে থাকে। তবে আমার ছেলে বিদেশ যাওয়ার সময় ৭০ হাজার টাকা দিয়েছিল। আমার ছেলেরা তাকে মারধর বা বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়নি। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে ভেবে তাকে পরিবারের বাইরে থাকার জন্য বলা হয়েছিল।
আহত সাইফুল ইসলাম জানান, আমি টাকা ফেরত চাইতে বাড়ীতে আসলে আমাকে মারধর করে তাড়িয়ে দিয়েছে। আমি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত নই। ইতোমধ্যই নমুনা পরীক্ষা করে নেগিটিভ হয়েছে।
গাংনী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ওবাইদুর রহমান জানান,অভিযোগ পেলে ঘটনা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Please follow and like us: