কচুয়া পৌরবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছে প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম

July 27, 2020 9:25 pm

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

কচুয়া পৌরবাসীর উদ্দেশ্যেে ঈদ-উল-আযহার শুভেচ্ছা প্রদান করেছেন কচুয়া পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোঃ নজরুল ইসলাম।

প্রিয়,
কচুয়া পৌরবাসী,

ঈদের শুভেচ্ছা ও ঈদ মোবারক। আমি মোঃ নজরুল ইসলাম প্রধান, যুগ্ম সম্পাদক, কচুয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগ, প্যানেল মেয়র, কচুয়া পৌরসভা। আমি বিগত দিনে আপনাদর সাথে ছিলাম, আছি এবং থাকবো।

আমি আপনাদের সহযোগিতা ও দোয়া চাই। আমার নেতা মহীউদ্দীন খান আলমগীর কচুয়ার গর্ব, যার জন্ম না হলে বাংলাদেশের মানচিত্রে কচুয়ার নাম খুঁজে পেতে আরো অনেক কস্ট হতো। মহীউদ্দীন খান আলমগীর সাহেব এর নামের গুনের কথা লিখতে কয়েক মাস লেগে যেতে পারে। ওনার পিছনে রাজনীতি করতে সমস্যা কোথায়? ওনাকে মেনেই, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড চালাতে সমস্যা কোথায়? শিক্ষক ছাড়া ছাত্র যেমন হবে, পিতা ছাড়া সন্তান তেমন। মহীউদ্দীন খান কে গুরু মেনে সকলেই কচুয়ার রাজনীতি করা উচিৎ। সবাই যদি নেতা হয়ে যাই তাহলে কর্মী হবে কে? আজ কে আউয়াল সাহেব, তাজুল ইসলাম বি,এস,সি, শহীদ বি, এস, সি, শুকু মেম্বার আরো অনেকে দূনিয়া ছেড়ে চলে গেলেন, ওরাও কচুয়া আওয়ামী লীগের এক, এক, সময়ের গুরু ছিলেন অস্বীকার করা যাবে না। আইয়ুব আলী পাটোয়ারী, তোতা শহীদ ভাই, তরিকুল ভাই, বাহার ভাই,রফিকুল ইসলাম লালু ভাই,বাটা জাকির, প্রানজল, মনির প্রধান, কালা কামাল, সুন্দর কামাল, অভি মনির, বর্তমান মেয়র, লিঠুন, এডভোকেট হেলাল, গুল বাহারের অনেকেই অনেক ভাই কে দেখলে নাম, মনে হয়। যেমন রহীমানগর ও সাচারের অনেক ভাই বন্ধুরা, এদের অনেকের সাথে রাজনীতি করতাম।মাসুদ,কামাল, জাহাংগীর,সুজন,লম্বা শাহীন,ইকবাল আজিজ শাহীন,জামাল,শিমুল রা ও চিলো,আমি, নজরুল, টুটুল ফুয়াদ, রাসেল,হোসাইন,ফখরুল,আরো অনেকেই এই দলের জন্য কস্ট করেছে। এখন কেন জানি এই ফুলগুলো হারিয়ে যাচ্ছে এক,এক করে।হয়তোবা দুই এক জন সুবিধা পেয়েছে। শুধু গুরু না মানার কারনে,আজকে কচুয়া আওয়ামী লীগের এই অবস্তা।

যাইহোক,আগামীতে যারা কচুয়া আওয়ামী লীগের নের্তৃত্ব দিতে চান,তারা যাতে আওয়ামী লীগের জন্য রাজনীতি করে।নিজের সার্থকতার জন্যা যাতে না করে।অনেকের নাম মনে নেই,দেখলেই মনে হয়, হয়তোবা কস্ট নিবেন।আমার জন্য দোয়া করবেন।

Please follow and like us: