আল্লাহ অহংকারীর গর্দান ছিড়ে ফেলবেন

August 10, 2020 12:19 am

নিউজ ডেক্সঃ

ইলম-আমল, জ্ঞান-গরিমা, অর্থ-সম্পদ, ইজ্জত-সম্মান, প্রভাব-প্রতিপত্তি, বংশমর্যাদা, ইবাদত-উপাসনা ইত্যাদি যে কোনো বিষয়ে নিজেকে বড় মনে করা এবং অন্যকে তুচ্ছ ও নগণ্য মনে করাকে অহংকার বলা হয়। আল্লাহ তায়ালা কোরআনের এরশাদ করেন ,

قِيلَ ادْخُلُوا أَبْوَابَ جَهَنَّمَ خَالِدِينَ فِيهَا فَبِئْسَ مَثْوَى الْمُتَكَبِّرِينَ
অর্থ্যাৎ -ঃ বলা হবে, তোমরা জাহান্নামের দরজা দিয়ে প্রবেশ কর, সেখানে চিরকাল অবস্থানের জন্যে। কত নিকৃষ্ট অহংকারীদের আবাসস্থল। (সূরা জুমার : ৭২)

ইমাম গাজ্জালি (রহ.) বলেন, নিজেকে বড় মনে করা এবং নিজেকে অন্যের তুলনায় অধিক মর্যাদাবান মনে করাই হলো অহংকার। আল্লামা রাগেব ইস্পাহানি (রহ.) এর মতে, অহংকার হলো নিজেকে অন্যের তুলনায় উত্তম বা মহৎ মনে করা এবং আল্লাহর পক্ষ থেকে আসা সত্যকে প্রত্যাখ্যান করা।

হজরত লোকমান (আ.) তার ছেলেকে যে উপদেশ দিয়েছিলেন তার বর্ণনা দিয়ে আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন

وَلَا تُصَعِّرْ خَدَّكَ لِلنَّاسِ وَلَا تَمْشِ فِي الْأَرْضِ مَرَحًا إِنَّ اللَّهَ لَا يُحِبُّ كُلَّ مُخْتَالٍ فَخُورٍ

অর্থ -ঃ অহংকারবশে তুমি মানুষকে অবজ্ঞা করো না এবং পৃথিবীতে গর্বভরে পদচারণ করো না। নিশ্চয় আল্লাহ কোন দাম্ভিক অহংকারীকে পছন্দ করেন না।(সূরা লোকমান : ১৮)

ইতঃপূর্বে বহু সম্প্রদায়কে অহংকারের কারণে ধ্বংস করা হয়েছে। এ অহংকারের কারণেই ফেরেশতাদের সর্দার ইবলিসের ঠিকানা হয়েছে চির জাহান্নাম।

হজরত ইবনে মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেন ‘অহংকার হচ্ছে দম্ভভরে সত্য ও ন্যায়কে অস্বীকার করা এবং মানুষকে ঘৃণা করা।’ (মুসলিম)। প্রিয়নবী (সা.) আরও এরশাদ করেন ‘যার অন্তরে সামান্য পরিমাণ অহংকার থাকবে, সে জান্নাতে প্রবেশ করবে না।’ (মুসলিম)।

হাদিসে কুদসিতে আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন ‘অহংকার হলো আমার চাদর। সুতরাং যে ব্যক্তি তা নিয়ে টানাটানি (অর্থাৎ অহংকার) করবে, আমি তার গর্দান ছিঁড়ে ফেলব।’ (আবু দাউদ)।

সমাজের শান্তি, সম্প্রীতি ও সমৃদ্ধির বড় অন্তরায় হলো অহংকার, যা মানুষের ইহকাল-পরকালকে ধ্বংস করে। ধ্বংস করে মানুষের মনুষ্যত্ব, জাগিয়ে তোলে হিংস্রতা। সর্বোপরি অহংকার মানুষের পতন ত্বরান্বিত করে। তাই তো বলা হয়, অহংকার পতনের মূল। আল্লাহ তায়ালা আমাদের অহংকার নামক ধ্বংসব্যাধি থেকে হেফাজত করুন।

Please follow and like us: