পেরুর বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করেছেন নেইমার

October 14, 2020 11:00 am
Spread the love

স্পোর্টস ডেস্ক

পেরুর বিপক্ষে মাঠে নামার আগে নতুন এক রেকর্ড হাতছানি দিচ্ছিল নেইমার জুনিয়রকে। এক গোল করতে পারলে ছুঁতে পারবেন কিংবদন্তি রোনালদো দ্য লিমাকে আর দুই করতে পারলে তাকে টপকে বনে যাবেন ব্রাজিলের ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা। পেরুর রাজধানী লিমাতে হ্যাটট্রিক করে ব্রাজিলকে জেতালেন ২-৪ গোলের ব্যবধানে আর সেই সঙ্গে ব্রাজিলের ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতাও বনে গেলেন হালের অন্যতম সেরা এই ফুটবলার।

ব্রাজিলের ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোল করে শীর্ষ স্থান দখল করে আছেন কিংবদন্তি পেলে। সেলেকাওদের জার্সিতে তার গোল সংখ্যা ৭৭টি। আর রোনালদো লিমার এতদিন ৬২ গোল করে ধরে ছিলেন দ্বিতীয় স্থান। পেরুর বিপক্ষে মাঠে নামার আগে ৬১ গোল করে তৃতীয় স্থানে ছিলেন নেইমার। ম্যাচে প্রথমে এক গোল করে নেইমার স্পর্শ করেন এই কিংবদন্তীকে, দ্বিতীয় গোল করে টপকে যান রোনালদো লিমাকে আর হ্যাটট্রিক করে পেলের রেকর্ড ৭৭ গোলের আরও কাছে চলে যান এই সুপারস্টার।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে বিশ্বের সকল মহাদেশের বিশ্বকাপ বাছাই স্থগিত হলেও দক্ষিণ আমেরিকার বিশ্বকাপ বাছাই পর্ব শুরু হয়েছে। ক্লাব ফুটবলের বিরতিতে আন্তর্জাতিক ফুটবল মাঠে গড়িয়েছে গত সপ্তাহে। আর কনমেবল চালিয়ে যাচ্ছে ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ বাছাই। বিশ্বকাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় ম্যাচে পেরুর মুখোমুখি ব্রাজিল। দুর্দান্ত ছন্দে থাকা ব্রাজিলের সহজ জয়ই ধরে নিয়েছিল অনেকে। তবে ম্যাচের স্কোরলাইন যাইই বলুক না কেন ব্রাজিলের জন্য ম্যাচটি সহজ ছিল না।।

ম্যাচের শুরুতেই ব্রাজিলের জালে বল জড়ান পেরুর ফরোয়ার্ড আন্দ্রে কারিল্লো। খেলা তখন চলছে মাত্র ৬ মিনিটের পেরুর ফরোয়ার্ড কারিল্লোর নেওয়া দুর্দান্ত ভলিতে পরাস্থ ব্রাজিল গোলরক্ষক ওয়েভারটন। এরপর সমতায় ফিরতে মরিয়া ব্রাজিল ১৪তম মিনিটে গোলের সুযোগ পেয়েছিল তবে পেরুর গোলরক্ষক পেড্রো গাল্লিজের অবিশ্বাস্য সেভে সে যাত্রায় রক্ষা পায় পেরু। তবে খুব বেশি সময় লিড ধরে রাখতে পারেনি স্বাগতিকরা। ম্যাচের ২৮ মিনিটে পেনাল্টি স্পট থেকে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান নেইমার। আর সেই সঙ্গে স্পর্শ করেন রোনালদো লিমার ব্রাজিলের হয়ে করা ৬২ গোলের রেকর্ড। আর যৌথভাবে বনে যান সেলেকাওদের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা।

ম্যাচের ২৬ মিনিটে নেইমারের উদ্দেশে উড়ে আসে একটি ক্রস, তবে বলটি ধরতে ব্যর্থ হন নেইমার। কেননা বল ধরতে গেলে তার জার্সি ধরে ডি বক্সের ভেতরেই ফেলে দেন পেরুর মিডফিল্ডার ইয়োশিমার ইয়োটান। আর সঙ্গে সঙ্গে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারে। স্পট কিক থেকে ম্যাচের ২৮তম মিনিটে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান নেইমার।

এর মিনিট তিনেক পরে আরও গোল করে দলকে এগিয়ে নিয়েছিলেন নেইমার। তবে ভিএআরের মাধ্যমে রেফারি দেখেন রিচার্লিসন আগে থেকেই অফসাইডে ছিলেন আর বাতিল করে দেন গোলটি। ম্যাচের ৪১ মিনিটে দলকে প্রথমবারের মতো এগিয়ে নেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন রবার্তো ফিরমিনো। বাঁ প্রান্ত থেকে রেনান লোদির দুর্দান্ত এক ক্রস আসে ফিরমিনোর উদ্দেশে, মাথা ছোঁয়াতে পারলেই বল জালে কিন্তু তিনি মাথা ছোঁয়াতে পারলেও বল রাখতে পারেননি গোলপোস্ট বরাবর। বল চলে যায় গোলপোস্টের বাইরে আর ম্যাচে এগিয়ে যাওয়ার সহজ সুযোগটাও হাতছাড়া হয়। এভাবেই ১-১ সমতায় শেষ হয় প্রথমার্ধ।