জনবল সংকটে কলমাকান্দা কৃষি অফিসে সেবা ব্যাহৃত

November 23, 2020 8:38 pm

রানা আকন্দ, কলমাকান্দা:

নেত্রকোণা কলমাকান্দা উপজেলা কৃষি অফিসে জনবল সংকটের কারণে দীর্ঘদিন ধরে সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে স্থানীয় কৃষকরা। উপজেলা কৃষি অফিসে জনবল সংকটের বিষয়ে একাধিকবার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হলেও দুশ্যমান কোন উদ্যোগ নেয়নি বলে জানা গেছে। স্থানীয় ও কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলায় কৃষি প্রধান উপজেলা কলমাকান্দা।

এ উপজেলায় আবাদি জমি হচ্ছে ৩১ হাজার ২৬৯ হেক্টর। কৃষি পরিবারের সংখ্যা ৪৫ হাজার ১৬০ জন। উপজেলা ৮টি ইউনিয়নে কৃষি সেবা নিশ্চিত করার লক্ষে ২৪টি ব্লক রয়েছে। এ উপজেলা কৃষি অফিসার, অতিরিক্ত উপজেলা কৃষি অফিসার, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার, সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ২৪ জন সহ ৪০ জন কর্মকর্তা থাকার কথা কিন্তু তার বিপরীতে ১৬ জন কর্মরত আছে। এ উপজেলায় কৃষিতে সমৃদ্ধ হওয়ার সত্ত্বেও জনবল সংকট থাকার কারণে প্রাপ্য সেবা হতে বঞ্চিত হওয়ায় দিন দিন কৃষি কাজের প্রতি আগ্রহ হারাচ্ছেন কৃষকরা। কৃষি অফিসার ও মাঠ কর্মীদের সহযোগিতা না পেয়ে ফসলের সঠিক পরিচর্যা করতে পারছেন না। উপজেলার সদর ইউনিয়ন চান্দুয়াইল গ্রামের কৃষক রজব আলী জানান, আমাদের ইউনিয়নের ওয়ার্ডে দায়িত্বে থাকা কোন মাঠ কর্মী আসেননি। অফিসে গিয়েও উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের পাওয়া যায় না। তবে শুনেছি তাদের জনবল সংকট রয়েছে।

অফিস সূত্রে জানা যায় কলমাকান্দা উপজেলা কৃষি অফিসের অধীনে দীর্ঘদিন যাবত যে সমস্ত পদ শূন্য রয়েছে তা হলো উপজেলা কৃষি অফিসার একজন, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার দুই জন, সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার একজন, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা পনের জন, উচ্চমান সহাকরী তথা হিসাব রক্ষক একজন, পি.পি. এম দুইজন, স্প্রেয়ার মেকানিক একজন, নিরাপত্তা প্রহরী একজন সহ চব্বিশটি পদ শূন্য রয়েছে। এর মধ্যে উপজেলায় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নয় জনের মধ্যে মোঃ ফরিদ হোসেন প্রেষণে গাজীপুর মৌচাকের হার্টিকালচার সেন্টারে কর্মরত আছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ ফারুক আহমেদ সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন জনবল সংকট থাকার করণে কাজ করতে খুবই হিমশিম খেতে হচ্ছে। লোকবল পেলে কাজের গতি আরো বৃদ্ধি পাবে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রতি মাসেই শূন্য পদের প্রতিবেদন পাঠানো হয়। তারা যদি পদায়ন করেন তাহলে আমরা পদায়ন করতে পারব। এবং কাজের স্বাভাবিক গতি পিরে আসবে।