ফেব্রুয়ারি থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার

January 21, 2021 10:44 pm

নিউজ ডেক্সঃ

এসএসসি ও এইচএসসি সমমান পরীক্ষার্থীদের সিলেবাস শেষ করতে ফেব্রুয়ারি মাস থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। শিগগিরই এ বিষয়ে ঘোষণা দেয়া হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এছাড়াও আগামী জুন মাসে শুরু হচ্ছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা।

দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় পরীক্ষার জন্য একটি সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদন দেয়া হলে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সেটি শিক্ষাবোর্ডগুলো থেকে প্রকাশ করা হবে বলেও জানা গেছে।

এনসিটিবি চেয়ারম্যান নারায়ন চন্দ্র সাহা বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে চলতি বছরের এসএসসি সমমান পরীক্ষার্থীদের জন্য আমরা একটি সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তৈরি করেছি। সেটি গত রোববার (১৭ জানুয়ারি) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সেটি অনুমোদন দেয়া হলে শিক্ষাবোর্ডগুলো থেকে তা প্রকাশ করা হবে। তার আলোকে এ বছরের এসএসসি পরীক্ষার আয়োজন করা হবে।

এক্ষেত্রে কত শতাংশ সিলেবাস কমানো হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সিলেবাস প্রয়োজন অনুসারে ছোট করা হয়েছে তবে এটাকে ভাগ করে বলা সম্ভব নয়।

তবে এনসিটিবি সূত্র জানায়, প্রায় ২০ থেকে ২৫ ভাগ সিলেবাস কমানো হয়েছে। এ লক্ষ্যে নবম-দশম শ্রেণির সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করতে প্রতিটি বিষয়ের জন্য দুজন সিনিয়র শিক্ষকসহ এনসিটিবির একজন বিষয়ভিত্তিক বিশেষজ্ঞ মিলে একটি দল গঠন করা হয়। এভাবে প্রতিটি বিষয়ের জন্য তিন সদস্যের একটি করে দল গঠন করে সিলেবাস সংক্ষিপ্তকরণের কাজ করা হয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মাহাবুব হোসেন বলেন, এসএসসি সমমান পরীক্ষার জন্য এনসিটিবি একটি সংক্ষিপ্ত সিলেবাস দিয়েছে। যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। এই সিলেবাস ক্লাসে পড়িয়ে আগামী জুন থেকে এসএসসি পরীক্ষা শুরু করা হতে পারে। এ জন্য দ্রুততম সময়ের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

এদিকে বিশ্বস্ত একটি সূত্র জানিয়েছে, সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চালু করার জন্য প্রত্যেকটি বিদ্যালয় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে ৪ ফেব্রুয়ারি একটি জরুরি নোটিশ জারি করতে পারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

চতুর্থ, পঞ্চম, দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীকে প্রাথমিকভাবে বিদ্যালয়ে যাওয়ার অনুমতি দেয়া হবে ফেব্রুয়ারি মাসেই।