অতিরিক্ত দুধ পানে হাড়ের রোগের ঝুঁকি বাড়তে থাকে

February 3, 2021 2:36 pm

লাইফস্টাইল ডেক্সঃ

দুধ পান করা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। দুধে ক্যালসিয়াম, প্রোটিন, পটাসিয়াম ও ভিটামিন-ডি’সহ রয়েছে বিভিন্ন পুষ্টিগুণ। সুস্বাস্থ্য, শক্তি এবং শারীরিক বিকাশের জন্য সবসময় দুধের কথা বলা হয়। এছাড়াও নিয়মিত দুধ পানে শরীরের হাড়গুলো শক্তিশালী হয়। কিন্তু গবেষকরা বলছেন অতিরিক্ত দুধ পান একদমই ভালো নয়। গবেষকদের মতে দুধকে কখনোই সুপারফুড হিসেবে নেওয়া ঠিক হবে না। দুধ পান শরীরের জন্য উপকারী হলেও অতিরিক্ত দুধ পানে অনেক অসুবিধা রয়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গবেষক ক্রিস্টোফার গার্ডনার ‘ডিস্কভার ম্যাগাজিনকে’ জানিয়েছেন, দুগ্ধজাত খাবারে এমন কোনো বিশেষ পুষ্টি নেই যা অন্য কোনো খাবারে পাওয়া যায় না। তবে ক্যালসিয়াম খুব সহজেই পাওয়া যায় দুগ্ধজাত খাবারে। সমীক্ষা করা লুডভিগ জানিয়েছেন, অতিরিক্ত দুধ পানে লম্বা হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হাড়ের রোগের ঝুঁকি বাড়তে থাকে। দুধে যে সকল পুষ্টি পাওয়া যায় তা অন্যান্য খাবার থেকেও পাওয়া যায়, কিন্তু তা পৃথক পৃথকভাবে।

অনেকেরই দুধে অ্যালার্জি থাকে যাকে বলা হয়ে থাকে ‘ল্যাকটোজ ইনটলারেন্সি। তারা দুগ্ধজাত খাবার হজম করতে পারেন না। দুধ পানে তাদের পেটে ব্যথা বা অন্যান্য সমস্যা হয়। সমীক্ষা বলছে, বিশ্বের প্রায় ৬৫ শতাংশ লোক ল্যাকটোজের সমস্যায় ভুগছেন। এই ধরনের লোকদের বিশেষজ্ঞরা কমলার রস, টোফু এবং সবুজ শাকসবজি খাওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে অতিরিক্ত দুধ পানেও মারাত্মক রোগ হতে পারে। বিশেষ করে গরুর দুধ পানের সময় খেয়াল রাখা উচিত। দুগ্ধ খাবার অতিরিক্ত খাওয়ার ফলে পুরুষদের প্রোস্টেট ক্যান্সার এবং মহিলাদের এন্ডোমেট্রিয়াল ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়। এদিকে ক্রিম দুধে স্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং সোডিয়াম থাকে বেশি। এই দুটি উপাদানই হার্ট এবং রক্তচাপের জন্য ক্ষতিকর। গবেষকরা স্বল্প ফ্যাটযুক্ত দুধ পান করার জন্য পরামর্শ দেন।