ইউপি নির্বাচন: ভোট কেটে নিতে চাওয়ায় প্রতিবাদ, মারপিট করলেন চেয়ারম্যানের সন্ত্রাসী বাহিনী

June 10, 2021 7:57 pm

এসএম বাচ্চু, তালা:

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ফের তোড়জোড় হতে শুরু তালা উপজেলার রাজনীতির মাঠ।এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ভোটকেন্দ্রে অন্য দল মনোনীত প্রার্থীর এজেন্ট থাকলে তার হাত কেটে নেওয়া এবং নৌকার বাইরে কাউকে ভোট দিতে দেওয়া হবে না বলে হুমকি প্রদান করছেন চেয়ারম্যান সরদার জাকিরের পোষ্য সন্ত্রাসী বাহিনী।

এমনকি ভোট কেটে নিতে চাইলে তৎক্ষণাত প্রতিবাদ করায় বিকাশ দাশকে মারপিট করার অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। মারপিট ও হত্যার হুমকি প্রদর্শন করে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করে চলেছেন সরদার জাকিরের পোষ্য সন্ত্রাসী বাহিনী।

ঘটনার বিবরণে জানাযায়,গত মঙ্গলবার (৮ জুন) ১২ টার দিকে সাতক্ষীরার তালা সদরের খাঁনপুর বাজারে সরদার জাকিরের পোষ্য পেটুয়া বাহিনীর সদস্য গফফার ও জাকির সাধারণ ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে বলেন, জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী লাঙ্গল প্রতিকের প্রাথী এজেন্ট থাকলে তার হাত কেটে নেওয়া ও নৌকার বাইরে কাউকে ভোট দিতে দেওয়া হবে না এবং আমরা স্থানীয় প্রসাশনের মাধ্যমে ভোট কেটে নেব। এমন কথার প্রেক্ষিতে খানপুর গ্রামের মৃত বিমল দাসের পুত্র বিকাশ দাস প্রতিবাদ করেন।উক্ত সময় গফফার ও জাকির ক্ষিপ্ত হয়ে বিকাশ কে বেধড়কভাবে কিল,ঘুষি, থাপ্পড় মারেন। এক পর্যায়ে গফফার তাকে জীবনের তরে শেষ করে দেওয়ার লক্ষ্য পাশের সাইকেল গ্যারেজ হতে হাতুড়ি ও লোহর রড আনার বৃথা চেষ্টা করে। পরে স্থানীয় এলাকাবাসীর সহযোগিতায় সরদার জাকিরের সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্যদের হাত হতে বিকাশ কে উদ্ধার করা হয়।

সরেজমিনে খানপুর বাজারে গেলে সাইকেলের দোকানদার শহিদুল,মুদি দোকানদার গফুর সরদার, রফিকুল বলেন, বিকাশ খানপুর বাজারে সেলুনের দোকান আছে। সে সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমান চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সাংবাদিক নজরুল ইসলামের সমার্থক । নৌকার সমার্থক গফফার ইউপি নির্বাচনে ভোট কেটে নিতে চাইলে বিকাশ প্রতিবাদ করে। প্রতিবাদ করার কারনে তাকে বেধড়কভাবে মারপিট করা হয়। এবং হাতুড়ি ও লোহার রড দিয়ে মারার হুমকি দিতে থাকেন গফফার ও জাকির।

এ বিষয়ে গফফারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি নৌকার প্রার্থীর সমার্থক। চায়ের দোকানে বসে আলাপ করছিলোম ভোট নিয়ে কথায় কথায় বলেছি এবার কি ভোট কেটে নিতে হবে কিনা বলতে পারছি না। সেই সময় বিকাশ এই কথা বলার কারন জানতে চাওয়া কথা কাটাকাটি শুরু হয়। কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে তাকে আমি মারতে যায় তবে মারিনি।

আহত বিকাশ বলেন,গফফার ও জাকির ভোট কেটে নেওয়া,লাঙ্গলের প্রার্থীর এজেন্ট থাকলে তার হাত কেটে নেওয়া এবং নৌকার বাইরে কাউকে ভোট দিতে দেওয়া হবে না বলে হুমকি দিতে থাকে আমি প্রতিবাদ করলে আমাকে মারপিট করে। সরদার জাকিরের পোষা সন্ত্রাসীরা প্রায় আমাদের গ্রাম ঋষি পাড়ায় হামলা করে। সম্প্রতি ভোটনিয়ে তারা ঋষি তান্ডব চালিয়েছে। আমাকে বিনাদোষে মঙ্গলবার মারপিট করলো।