বিদ্যারসাগর, ” ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর” এর সংক্ষিপ্ত জীবনী…

October 8, 2016 6:12 pm

ইতিহাস;

১৮২০ সালের ২৬শে সেপ্টেম্বর ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বর্তমান
পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার বীরসিংহ গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর।তিনি
উনিশ শতকের বিশিষ্ট বাঙালি শিক্ষাবিদ, সমাজ সংস্কারক এবং গদ্যকার। তার প্রকৃত নাম
ঈশ্বরচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়।অগাধ পাণ্ডিত্যের জন্য প্রথম
জীবনেই লাভ করেন বিদ্যাসাগর উপাধি। সংস্কৃত ছাড়াও তার বাংলা এবং ইংরেজি ভাষায়
বিশেষ বুৎপত্তি ছিল । তিনি সর্ব প্রথম বাংলা লিপি সংস্কার করে তাকে যুক্তিবহ করে
তোলেন এবং অপরবোধ্য করে তোলেন। বাংলা গদ্যের প্রথম সার্থক রূপকার তিনি। রচনা
করেছেন জনপ্রিয় শিশুপাঠ্য বর্ণপরিচয় সহ একাধিক পাঠ্যপুস্তক ও সংস্কৃত ব্যাকরণ গ্রন্থ।
সংস্কৃত হিন্দি ও ইংরেজি থেকে বাংলায় অনুবাদ করেছেন সাহিত্য এবং করেছেন
জ্ঞানবিজ্ঞান সংক্রান্ত বহু রচনা।অন্যদিকে বিদ্যাসাগর মহাশয় ছিলেন একজন সমাজ
সংস্কারকও। বিধবা বিবাহ এবং স্ত্রীশিক্ষার প্রচলন, বহুবিবাহ ও বাল্য বিবাহের মতো
সামাজিক অভিশাপ দূরীকরণে তার অক্লান্ত সংগ্রাম আজও স্মরিত হয় যথোচিত শ্রদ্ধার
সঙ্গে। বাংলার নবজাগরণের এই পুরোধা ব্যক্তিত্ব দেশের আপামর জনসাধারণের কাছে
পরিচিত ছিলেন দয়ার সাগর নামে।দরিদ্র, আর্ত এবং পীড়িত কখনই তার দ্বার থেকে শূন্য
হাতে ফিরে যেত না। এমনকি নিজের চরম অর্থসংকটের সময়ও তিনি ঋণ নিয়ে পরোপকার
করেছেন। তার পিতামাতার প্রতি তার ঐকান্তিক ভক্তি এবং বজ্রকঠিন চরিত্রবল বাংলায়
প্রবাদপ্রতিম। মাইকেল মধুসূদন দত্ত তার মধ্যে দেখতে পেয়েছিলেন প্রাচীন ঋষির প্রজ্ঞা,
ইংরেজের কর্মশক্তি ও বাঙালি মায়ের হৃদয়বৃত্তি।বাঙালি সমাজে বিদ্যাসাগর মহাশয় আজও
এক প্রাতঃস্মরণীয় ব্যক্তিত্ব।

১৯৩৫ /*সংবৎ (১৮৭৪ খ্রিস্টাব্দ)-এ প্রকাশিত বর্ণপরিচয় গ্রন্থের ৫৩তম সংস্করণ।
বাংলা বর্ণশিক্ষার জগতে ১৮৫৫ সালে প্রকাশিত বইটি দেড়শ বছর পরে আজও সমান জনপ্রিয়।

১৮৪১ সালে সংস্কৃত কলেজে শিক্ষা সমাপ্ত হবার পর সেই বছরই ২৯শে ডিসেম্বর মাত্র একুশ
বছর বয়সে ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের বাংলা বিভাগের সেরেস্তাদার বা প্রধান পণ্ডিতের
পদে আবৃত হন বিদ্যাসাগর মহাশয়। বেতন ছিল মাসে ৫০ টাকা। ১৮৪৬ সালের ৫ই এপ্রিল
পর্যন্ত তিনি এই পদের দায়িত্বে ছিলেন। ১৮৪৬ সালের ৬ এপ্রিল একই বেতন হারে সংস্কৃত
কলেজের সহকারী সম্পাদকের ভার গ্রহণ করেন তার বয়স তখন পঁচিশ বছর। ১৮৪৭ সালে
স্থাপন করেন সংস্কৃত প্রেস ডিপজিটরি নামে একটি বইয়ের দোকান। সে বছরই এপ্রিল মাসে
প্রকাশিত হয় হিন্দি বেতাল পচ্চিসী অবলম্বনে রচিত তার প্রথম গ্রন্থ বেতাল
পঞ্চবিংশতি। বন্ধু মদনমোহন তর্কালঙ্কারের সম অংশীদারিত্বে সংস্কৃত যন্ত্র নামে একটি
ছাপাখানাও স্থাপন করেন তিনি। অন্নদামঙ্গল কাব্যের পান্ডুলিপি সংগ্রহের জন্য সে বছরই
নদিয়ার কৃষ্ণনগরে আসেন বিদ্যাসাগর মহাশয়।

কৃষ্ণনগর রাজবাড়িতে সংরক্ষিত মূল গ্রন্থের পাঠ অনুসারে পরিশোধিত আকারে দুই খণ্ডে
অন্নদামঙ্গল সম্পাদনা করেছিলেন তিনি। সেই বইটিই সংস্কৃত যন্ত্র প্রেসের প্রথম মুদ্রিত
গ্রন্থ। ১৮৪৭ সালের ১৬ই জুলাই কলেজ পরিচালনার ব্যাপারে সেক্রেটারি রসময় দত্তের
সঙ্গে মতান্তর দেখা দেয়ায় সংস্কৃত কলেজের সম্পাদকের পদ থেকে পদত্যাগ করেন। ১৮৪৯
সালে মার্শম্যানের হিস্ট্রি অফ বেঙ্গল অবলম্বনে রচনা করেন বাঙ্গালার ইতিহাস দ্বিতীয়
ভাগ গ্রন্থখানি। এই বছরেই ১ মার্চ পাঁচ হাজার টাকা জামিনে মাসিক ৮০ টাকা বেতনে
ফোর্ট উইলিয়াম কলেজে হেডরাইটার এবং কোষাধ্যক্ষ পদে আবৃত হন। বন্ধু ও হিতৈষীদের
সহযোগিতায় সমাজ সংস্কার আন্দোলনের লক্ষ্যে স্থাপনা করেন সর্ব্বশুভকরী সভা।

সেপ্টেম্বরে উইলিয়াম এবং রবার্ট চেম্বার্স রচিত খ্যাতিমান ইংরেজ মনীষীদের জীবনী
অবলম্বনে তার লেখা জীবনচরিত গ্রন্থখানি প্রকাশিত হয়। ১৮৫০ সালের অগস্ট মাসে
মদনমোহন তর্কালঙ্কারের সহযোগিতায় সর্ব্বশুভকরী পত্রিকা প্রকাশ করেন। এর প্রথম
সংখ্যায় বাল্যবিবাহের দোষ নামে একটি বাংলা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়। ৪থা ডিসেম্বর
ফোর্ট উইলিয়াম, কলকাতা|ফোর্ট উইলিয়ার কাজে ইস্তফা দিয়ে ৫ ডিসেম্বর সংস্কৃত কলেজে
সাহিত্যের অধ্যাপকের পদ গ্রহণ করেন। ১৮৫১ সালের ৫ই জানুয়ারি সাহিত্যের অধ্যাপকের
পদ ছাড়াও কলেজের অস্থায়ী সেক্রেটারির কার্যভারও গ্রহণ করেন। ২২শে জানুয়ারি ১৫০
টাকা বেতনে কলেজের অধ্যক্ষ নিযুক্ত হন।

সেই সময় থেকেই সংস্কৃত কলেজে সেক্রেটারির পদটি বিলুপ্ত হয়। এপ্রিল মাসে রুডিমেন্টস
অফ নলেজ অবলম্বনে তার রচিত বোধোদয় পুস্তকটি প্রকাশিত হয়। সংস্কৃত কলেজের অধ্যক্ষের
দায়িত্বভার নিয়ে তিনি কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সংস্কার সাধন করেন। ৯ই জুলাই পূর্বতন রীতি
বদলে ব্রাহ্মণ এবং বৈদ্য ছাড়াও কায়স্থদের সংস্কৃত কলেজে অধ্যয়নের সুযোগ করে দেন।
২৬শে জুলাই প্রবর্তিত হয় রবিবারের সাপ্তাহিক ছুটির প্রথা। তার আগে প্রতি অষ্টমী এবং
প্রতিপদ তিথিতে ছুটি থাকত। ডিসেম্বর মাসে সংস্কৃত কলেজের দ্বার সকল বর্ণের মানুষের
জন্য উন্মুক্ত করে দেন বিদ্যাসাগর মহাশয়। নিয়ম হয় যে কোনও সম্ভ্রান্ত হিন্দু সন্তান
সংস্কৃত কলেজে অধ্যয়নের সুযোগ পাবে। ১৮৫২ সালের এপ্রিলে ২৬ অনুচ্ছেদ সংবলিত নোটস
অন দ্যা সংস্কৃত কলেজ প্রস্তুত হয়। ২৮শে অগস্ট থেকে কলেজে প্রবেশার্থী ছাত্রদের ২
টাকা দক্ষিণা দেয়ারও প্রথা চালু হয়।

১৮৫৩ সালে জন্মভূমি বীরসিংহ গ্রামে স্থাপন করেন অবৈতনিক বিদ্যালয়। জুন মাসে
কালিদাসের রঘুবংশম্ ও ভারবির কিরাতার্জ্জুনীয়ম প্রকাশিত হয় তার সম্পাদনায়।
সেপ্টেম্বর মাসে বারাণসীর সংস্কৃত কলেজের অধ্যক্ষ জেমস আর ব্যালানটাইন সংস্কৃত কলেজ
পরিদর্শন করে যে রিপোর্ট দেন তার মতামত সমালোচনা করে শিক্ষা সংসদে একটি রিপোর্ট
দেন বিদ্যাসাগর মহাশয়। বাংলার শিক্ষার ইতিহাসে সে রিপোর্ট এক যুগান্তকারী দলিল।
সে বছরেই তার প্রসিদ্ধ গ্রন্থ ব্যাকরণ কৌমুদী প্রথম এবং দ্বিতীয় ভাগ প্রকাশিত হয়।

১৮৫৪ সালের জানুয়ারি মাসে ইংরেজ সিভিলিয়ানদের প্রাচ্য ভাষা শিক্ষা দেয়ার জন্য
প্রতিষ্ঠিত ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ ভেঙে বোর্ড অফ একজামিনার্স গঠিত হলে তার সদস্য
মনোনীত হন ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর। জুন মাসে সংস্কৃত কলেজে ছাত্রদের থেকে মাসিক ১
টাকা বেতন নেয়ার প্রথা চালু হয়। সে বছরেই ব্যাকরণ কৌমুদী তৃতীয় ভাগ ও কালিদাসের
অভিজ্ঞানশকুন্তলম অবলম্বনে তার রচিত শকুন্তলা প্রকাশিত হয়। তাছাড়া তত্ত্ববোধিনী
পত্রিকা এ বিধবা বিবাহ প্রচলিত হওয়া উচিত কিনা শীর্ষক একটি প্রবন্ধও প্রকাশিত হয়।

১৮৫৫ সালের জানুয়ারি মাসে বিধবা বিবাহ প্রচলিত হওয়া উচিত কিনা এতদ্বিষয়ক
প্রস্তাব প্রথম পুস্তক প্রকাশিত। সে বছরের এপ্রিল মাসে বাংলা নববর্ষের দিন
যুগান্তকারী বাংলা শিশুপাঠ্য বর্ণমালা শিক্ষাগ্রন্থ বর্ণপরিচয় প্রকাশিত হয়। কথিত আছে
মফস্বলে স্কুল পরিদর্শনে যাওয়ার সময় পালকিতে বসে তিনি বর্ণপরিচয় এর পাণ্ডুলিপি
প্রস্তুত করেন। ১ই মে সংস্কৃত কলেজের অধ্যক্ষের পদ ছাড়াও মাসিক অতিরিক্ত ২০০ টাকা
বেতনে দক্ষিণবঙ্গে সহকারী বিদ্যালয় পরিদর্শকের পদে নিযুক্ত হন। জুন মাসে বর্ণপরিচয়
গ্রন্থের দ্বিতীয় ভাগ প্রকাশিত হয়। ১৭ই জুলাই বাংলা শিক্ষক প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্যে
সংস্কৃত কলেজের অধীনে ওই কলেজের প্রাতকালীন বিভাগে নর্ম্যাল স্কুল স্থাপন করেন।

সে স্কুলে প্রধান শিক্ষক নিযুক্ত হন তার বন্ধু এবং বিশিষ্ট বাঙালি যুক্তিবাদী এবং
গ্রন্থকার অক্ষয়কুমার দত্ত । সে বছরেই দক্ষিণবঙ্গের চার জেলায় একাধিক মডেল স্কুল বা
বঙ্গবিদ্যালয় স্থাপন করেন। অগস্ট ও সেপ্টেম্বরে নদিয়ায় পাঁচটি, অগস্ট ও অক্টোবরে
বর্ধমানে পাঁচটি, অগস্ট থেকে সেপ্টেম্বর ও নভেম্বরে হুগলিতে পাঁচটি এবং অক্টোবর থেকে
ডিসেম্বরে মেদিনীপুর জেলায় চারটি বঙ্গবিদ্যালয় স্থাপন করেন। অক্টোবর মাসে বিধবা
বিবাহ বিরোধী মতের কণ্ঠরোধ করার পর্যাপ্ত শাস্ত্রীয় প্রমাণ সহ বিধবা বিবাহ প্রচলিত
হওয়া উচিত কিনা এতদ্বিষয় প্রস্তাব দ্বিতীয় পুস্তক প্রকাশ করেন। বিধবা বিবাহ
আইনসম্মত করতে ভারতে নিযুক্ত ব্রিটিশ সরকারের নিকট বহুসাক্ষর সংবলিত এক আবেদনপত্রও
পাঠান। ২৭শে ডিসেম্বর আরেকটি আবেদনপত্র পাঠান বহু বিবাহ নিবারণ বিধির জন্য।

১৮৫৬ সালের ১৪ই জানুয়ারি মেদিনীপুরে পঞ্চম বঙ্গবিদ্যালয় স্থাপিত হয়। ফেব্রুয়ারি
মাসে ঈশপের কাহিনি অবলম্বনে রচিত কথামালা প্রকাশিত হয়। ১৬ই জুলাই বিধবা বিবাহ
আইনসম্মত হয়। সেই দিনই প্রকাশিত হয় তার স্বরচিত গ্রন্থ চরিতাবলী। সে বছর ৭ই
ডিসেম্বর কলকাতায় প্রথম বিধবা বিবাহ আয়োজিত হয় ১২ সুকিয়া স্ট্রিটে বিদ্যাসাগর
মহাশয়ের বন্ধু রাজকৃষ্ণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে। পাত্র ছিলেন প্রসিদ্ধ কথক রামধন
তর্কবাগীশের কণিষ্ঠ পুত্র তথা সংস্কৃত কলেজের কৃতি ছাত্র এবং অধ্যাপক বিদ্যাসাগর
মহাশয়ের বন্ধু শ্রীশচন্দ্র বিদ্যারত্ন । পাত্রী ছিলেন বর্ধমান জেলার পলাশডাঙা গ্রামের
অধিবাসী ব্রহ্মানন্দ মুখোপাধ্যায়ের দ্বাদশ বর্ষীয়া বিধবা কন্যা কালীমতী।

১৮৫৭ সালের ২৪শে জানুয়ারি স্থাপিত হয় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের
পরিচালনা সমিতির অন্যতম সদস্য তথা ফেলো মনোনীত হন বিদ্যাসাগর মহাশয়। উল্লেখ্য
সেই সমিতির ৩৯ জন সদস্যের মধ্যে মাত্র ছয় জন ছিলেন ভারতীয় । সে বছর নভেম্বর
থেকে ডিসেম্বর মাসে হুগলি জেলায় সাতটি এবং বর্ধমান জেলায় একটি বালিকা বিদ্যালয়
স্থাপন করেন। পরের বছর জানুয়ারি থেকে মে মাসের মধ্যে হুগলিতে আরও তেরোটি,
বর্ধমানে দশটি, মেদিনীপুরে তিনটি এবং নদিয়ায় একটি বালিকা বিদ্যালয় স্থাপন করেন।

১৮৫৭ সালের নভেম্বর মাস থেকে ১৮৫৮ সালের মে মাস অবধি সমগ্র দক্ষিণবঙ্গে
বিদ্যাসাগর মহাশয় ৩৫টি বালিকা বিদ্যালয় স্থাপন করেছিলেন। মোট ১৩০০ ছাত্রীসম্বলিত
এই বিদ্যালয়গুলির জন্য তার খরচ হত মাসে ৮৪৫ টাকা। ১৮৫৮ সালের ৩ই নভেম্বর শিক্ষা
বিভাগের অধিকর্তার সঙ্গে মতবিরোধ হলে তিনি সংস্কৃত কলেজের অধ্যক্ষের পদ ত্যাগ
করেন। প্রায় ৩৯ বছর বয়সে সরকারের সঙ্গে তার সকল সম্পর্ক ছিন্ন হয়। যদিও নিজের
কাজের জন্য সরকারের তরফ থেকে কোনও রূপ স্বীকৃতি বা পেনসন তিনি পান নি।

১৮৭৫ সালের ৩১শে মে নিজের উইল প্রস্তুত করেন বিদ্যাসাগর মহাশয়। পরের বছর ২৬শে
ফেব্রুয়ারি হিন্দু ফ্যামিলি অ্যানুয়িটি ফান্ডের ট্রাস্টি পদ থেকে ইস্তফা দেন। এপ্রিল
মাসে কাশীতে পিতা ঠাকুরদাস বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু হয়। সে সময় কলকাতার বাদুড়বাগানে
বসতবাড়ি নির্মাণ করেন। বর্তমানে সে বাড়ি সংলগ্ন রাস্তাটি বিদ্যাসাগর স্ট্রিট ও
সমগ্র বিধানসভা কেন্দ্রটি বিদ্যাসাগর নামে পরিচিত। ১ ও ২ অগস্ট আদালতে উপস্থিত
থেকে চকদিঘির জমিদার সারদাপ্রসাদ রায়ের উইল মামলায় উইল প্রকৃত নয় বলে জমিদার
পত্নী রাজেশ্বরী দেবীর স্বপক্ষে সাক্ষী দেন। ১৮৭৭ সালের জানুয়ারি থেকে বাদুড়বাগানে
বাস করতে থাকেন বিদ্যাসাগর মহাশয়। এপ্রিল মাসে গোপাললাল ঠাকুরের বাড়িতে
উচ্চবিত্ত ঘরের ছেলেদের পড়াশোনার জন্য বিদ্যালয় স্থাপন করেন। ছাত্রদের বেতন হয়
মাসিক ৫০ টাকা। ১৮৭৯ সালে মেট্রোপলিটান কলেজ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক দ্বিতীয়
থেকে প্রথম শ্রেণীর কলেজে উন্নীত হয়।১৮৮০ সালের ১ই জানুয়ারি বিদ্যাসাগর মহাশয়
সিআইই উপাধি পান।

১৮৮১ সালে মেট্রোপলিটান কলেজ থেকে প্রথম বিএ পরীক্ষার্থী পাঠানো হয়। ১৮৮২ সালের
৫ই অগস্ট রামকৃষ্ণ পরমহংস তার বাদুড়বাগানের বাড়িতে আসেন। দুজনের মধ্যে ঐতিহাসিক
এক আলাপ ঘটে। সে বছর মেট্রোপলিটান কলেজে চালু হয় আইন পাঠ্যক্রম। ১৮৮৩ সালে
বিদ্যাসাগর মহাশয় পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ের ফেলো নির্বাচিত হন। মার্চে বাণভট্টের
হর্ষচরিতম তার সম্পাদনায় প্রকাশিত হয়।

১৮৮৪ সালের নভেম্বরে কস্যচিৎ উপযুক্ত ভাইপোস্য ছদ্মনামে ব্রজবিলাস গ্রন্থ প্রকাশ
করেন। তাছাড়াও প্রকাশিত হয় কস্যচিৎ তত্ত্বান্বেষিণ’ ছদ্মনামে বিধবা বিবাহ এবং
যশোহর হিন্দুধর্মরক্ষিণীসভা পুস্তক। দ্বিতীয় সংস্করণে তিনি এর নামকরণ করেন বিনয়
পত্রিকা । নভেম্বরেই কানপুরে বেড়াতে যান এবং সেখানে কিছুদিন থাকেন। ১৮৮৫ সালে
মেট্রোপলিটান কলেজের বউবাজার শাখা স্থাপিত হয়।

১৮৮৬ সালের অগস্টে ‘কস্যচিৎ উপযুক্ত ভাইপোসহচরস্য’ ছদ্মনামে রত্নপরীক্ষা পুস্তক প্রকাশ
করেন। ১৮৮৭ সালের জানুয়ারিতে শঙ্কর ঘোষ লেনের নতুন ভবনে মেট্রোপলিটান কলেজ
স্থানান্তরিত হয়। ১৮৮৮ সালের এপ্রিলে নিষ্কৃতিলাভ প্রয়াস, জুনে আখ্যান মঞ্জরী দ্বিতীয়
ভাগ, জুলাইতে পদ্যসংগ্রহ নামক সংকলন গ্রন্থের প্রথম ভাগ প্রকাশ করেন। ১৩ই অগস্ট
পত্নী দীনময়ী দেবীর মৃত্যু হয়।

১৮৮৯ সালের নভেম্বরে প্রকাশ করেন সংস্কৃত রচনা । ১৮৯০ সালের ১৪ই এপ্রিল বীরসিংহ
গ্রামে মায়ের নামে স্থাপন করেন ভগবতী বিদ্যালয়। মে মাসে নির্বাচিত উদ্ভট
শ্লোকসংগ্রহ শ্লোকমঞ্জরী প্রকাশিত হয়।বাংলার নবজাগরণের অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব
ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর প্রয়াত হন ১৮৯১ সালের ২৯শে জুলাই বাংলা ১২৯৮ সনের ১৩ই
শ্রাবণ রাত্রি ২:18 মিনিটে তার কলকাতার বাদুড়বাগানস্থ বাসভবনে। মৃত্যুকালে তার বয়স
হয়েছিল ৭০ বছর ১০ মাস ৩ দিন। মৃত্যুর কারণ ছিল ডাক্তারের মতে লিভারের ক্যানসার।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*