এয়ারপোর্ট থেকে গাজীপুর পর্যন্ত র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) চালু হচ্ছে

June 16, 2016 12:31 pm

সিনিয়ের রিপোর্টারঃ

ঢাকাঃ রাজধানীর সঙ্গে যুক্ত করে গাজীপুর থেকে এয়ারপোর্ট পর্যন্ত দ্রুত যাতায়াত সহজ করতে বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) চালু করতে যাচ্ছে সরকার। বিআরটি হচ্ছে সড়কের নির্দিষ্ট লেনে দ্রুতগতির বাস চলাচল অবকাঠামো স্থাপন। ২০১৮ এর ডিসেম্বরে বিআরটি চালুর কথা রয়েছে।

আগামী ২৬ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিআরটি প্রকল্পের নির্মাণকাজের উদ্বোধন করবেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ কথা জানান।

তিনি বলেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে সংরক্ষিত আলাদা লেনে মাত্র বিশ মিনিটে গাজীপুর থেকে এয়ারপোর্ট, আর এয়ারপোর্ট থেকে গাজীপুর আসা-যাওয়া করতে পারবেন যাত্রীরা। তা ছাড়া উভয়দিকে সংরক্ষিত আলাদা দুটি লেনে প্রতি ঘণ্টায় ২৫ হাজার যাত্রী আসা-যাওয়া করতে পারবে। প্রতি তিন মিনিট পরপর স্টেশন থেকে বাস ছাড়বে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ইতোমধ্যে আমরা প্রকল্পের প্রস্তুতিমূলক সকল কাজ শেষ করেছি। বাস্তবায়ন কাজও শুরু হয়েছে। ২০১৮ এর মধ্যেই কাজ শেষ করার আশা করছি।

‘প্রকল্পটি চালু হলে দ্রুত সময়ে অধিক যাত্রী সাশ্রয়ী ও আরামদায়ক পরিবেশে পরিবহন সেবা নিতে পারবে। পাশাপাশি রাজধানী ঢাকার যানজট অনেকাংশে কমে আসবে বলেও মনে করেন সেতুমন্ত্রী।

তিনি আরো বলেন, এ প্রকল্পটি গাজীপুর টার্মিনাল থেকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পর্যন্ত। সাড়ে ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ বিআরটি রুটে থাকবে ২৫টি স্টেশন। নির্মাণ করা হবে ৬টি ফ্লাইওভার। উত্তরা থেকে টঙ্গি পর্যন্ত সাড়ে ৪ কিলোমিটার থাকবে অ্যালিভেটেড বিআরটি লেন। ১৬ কিলোমিটার থাকবে সমতল বা এট গ্রেড। ১৮ মিটার দীর্ঘ ১০০টি আর্টিকুলেটেড বাস চলাচল করবে এ পথে। বাসগুলোয় ভাড়া আদায়ে থাকবে ইলেক্ট্রনিক স্মার্ট কার্ড।

ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রকল্পে মোট ব্যয় হবে প্রায় ২ হাজার ৪০ কোটি টাকা। এরমধ্যে প্রকল্প সহায়তা এক হাজার ৬ শত ৫১ কোটি টাকা। সরকারের পাশাপাশি প্রকল্পে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক, ফরাসী উন্নয়ন সংস্থা, গ্লোবাল অ্যানভায়রনমেন্টাল ফ্যাসিলিটি ফান্ড অর্থায়ন করছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ডিটিসিএর নির্বাহী পরিচালক মো. কায়কোবাদ হোসেন, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন, মেট্রোরেল প্রকল্পের মহাব্যবস্থাপক হারুন অর রশিদ, বিআরটি প্রকল্প পরিচালক একরামুল্লাহসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

Please follow and like us:

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*