নিজ শিকড়ে ফেরার আকুতি মানুষের চিরকালের

July 5, 2016 9:25 am

নিউজ ডেক্সঃ

ইট-পাথরের যান্ত্রিক নগরী ছেড়ে নিজ শিকড়ে ফেরার আকুতি মানুষের চিরকালের। তাও যদি হয় বছরের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিনের জন্য। জীবন-জীবিকার তাড়নায় পরিবার-পরিজন ছেড়ে অনেক দূরে পরে থাকা মানুষগুলোর জন্য পবিত্র ঈদ জীবনে যেন একটু স্পন্দন এনে দেয়।

ঈদের ছুটিতে বাড়ি ফিরবে, তাই পুরো রমজান মাসজুড়েই থাকে নানা পরিকল্পনা ও পরিবার-পরিজনদের নিয়ে সুখস্মৃতির ভাবনা। ঈদ নিয়ে দু’একটা দিন গ্রামের বাড়িতে কাটাবে সে জন্য প্রস্তুতির শেষ নেই শহরে কর্মব্যস্ত মানুষগুলোর। আর তাই যত বাধাই আসুক বাড়ি ফেরা চাই-ই চাই। জীবনের ঝুঁকি তুচ্ছ হয়ে যায় কল্পনায় ভেসে উঠা প্রিয় সন্তান-মা-বাবার মুখটি দেখে। ঈদের দিন সকালেও তাই দেখা যায় দক্ষিণাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ নৌরুটে ঘরমুখো মানুষের ভিড়।

এ বছর ঈদের ছুটি আগে-ভাগেই পেয়ে যাওয়ায় এই নৌরুটে যাত্রীদের চাপ কিছুটা কম ছিল। তবে মঙ্গলবার সকাল থেকে আগের চেয়ে যাত্রীদের প্রচণ্ড ভিড় দেখা গেছে।

এদিকে সকাল থেকেই বিরামহীন বৃষ্টিতে নাকাল ঘরে ফেরা মানুষেরা। দুপুর আড়াইটায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বৃষ্টি মাথায় নিয়ে ঘরে ফিরতে দেখা গেছে ঘরমুখো মানুষদের।

মঙ্গলবার সকাল থেকেই টানা বৃষ্টি হওয়ায় কাওড়াকান্দি ঘাটের জনজীবনে নেমে এসেছে দুর্ভোগের ছায়া। পুরো ঘাটজুড়ে কাদা-পানিতে একাকার হয়ে যাওয়ায় কাদা-পানি-বৃষ্টিতে ভিজেই যাত্রীদের ছুটতে হচ্ছে গন্তব্যে।

পদ্মা উত্তাল থাকায় সকাল থেকেই ফেরিতে যাত্রীদের ভিড় দেখা গেছে। তবে লঞ্চ-স্পিডবোটও থেমে নেই। শিমুলিয়া ঘাট থেকে বোঝাই হয়ে কাওড়াকান্দি ঘাটে এসে নামছে যাত্রীরা।

তবে নৌযান থেকে নেমে পরিবহনে উঠতে গিয়েই পরতে হচ্ছে ভোগান্তিতে। পরিবহনে দ্বিগুণেরও বেশি ভাড়া আদায় হচ্ছে সকাল থেকে। এদিকে বৃষ্টিকে পুঁজি করে পরিবহনগুলোতে বাড়তি ভাড়া নিচ্ছে বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে।

কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে মাইক্রোবাসে টেকেরহাট, গোপালগঞ্জ, ভাটিয়াপারা, খুলনা, বরিশাল রুটে দ্বিগুণেরও বেশি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেন।

দূরপাল্লার বাসেও ভাড়া দ্বিগুণ। তিনশ টাকার ভাড়ার স্থানে ছয়শ টাকা নেয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।

এছাড়া স্বল্প দূরুত্বের যাত্রীরা পরেছে আরো বিপাকে। দশ টাকার ভাড়া নেয়া হচ্ছে চল্লিশ টাকা। চল্লিশ টাকার ভাড়া নেয়া হচ্ছে দেড়শত টাকা। কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে পাঁচ্চর, শিবচর, সূর্যনগর, ভাঙ্গা, সদরপুরের ভাড়া এই হারে নেয়া হচ্ছে।

dha72

এদিকে কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে পদ্মাসেতুর সংযোগ সড়ক পর্যন্ত দুই ধাপে লেগে রয়েছে তীব্র যানজট। কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে কোনো গাড়িকে এ দুই কিলোমিটার পথ পার হতে ঘণ্টা লেগে যাচ্ছে।

অধিকাংশ যাত্রীরা অভিযোগ করে জানান, গতবারের চেয়ে এ বছর ঘাট এলাকায় অব্যবস্থাপনা বেশি। বিশৃঙ্খল অবস্থায় গাড়িগুলো যার যার ইচ্ছামতো রাস্তায় দাঁড়িয়ে যাত্রী তুলছে। ফলে দুই কিলোমিটার রাস্তাজুড়েই লেগে আছে যানজট। নৌযান থেকে নেমে প্রায় তিন কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে দূরপাল্লার পরিবহনে উঠতে হচ্ছে যাত্রীদের।

বিআইডব্লিউটিসি’র কাওড়াকান্দি ঘাটের ব্যবস্থাপক আব্দুস সালাম মিঞা বলেন, ‘সকাল থেকেই বৃষ্টি হওয়ায় ঘাট এলাকায় একটু দুর্ভোগ রয়েছে। তবে আমাদের ফেরি সার্ভিস ঠিক রয়েছে। যাত্রীরা ফেরিতে স্বাচ্ছন্দে পার হচ্ছে। বর্তমানে আমাদের ১৭টি ফেরি যাত্রী সেবায় নিয়োজিত রয়েছে।’

Please follow and like us:

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*