ভক্তদের পূজার মধ্যে দিয়ে বনভান্তের ৬ষ্ঠ তম পরিনির্বাণ দিবস পালিত

জানুয়ারি ৩০, ২০১৮ ৩:৪৮ দুপুর

অনন্ত চাকমা, রাঙামাটি প্রতিনিধি :

প্রতি বছরের ন্যায় এবারেও হাজার হাজার ভক্তদের পূজার মধ্যে দিয়ে বিভিন্ন ধর্মীয় ভাব মর্যাদায় রাঙামাটি রাজবন বিহারে বৌদ্ধ ধর্মালম্বীদের তথা এশিয়া মহাদেশের মধ্যে অন্যতম ধর্ম গুরু শ্রাবক বুদ্ধ শ্রীমৎ সাধনানন্দ মহাস্থবির বনভান্তের ৬ষ্ঠ তম পরিনির্বাণ দিবস পালিত হয়েছে।৩০শে জানুয়ারী(মঙ্গলবার) সকাল ৬ ঘটিকার সময়ে বুদ্ধ পতাকা উত্তোলন করা সম্পন্ন হয় । মধু মঙ্গল চাকমার অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ৯ ঘটিকার সময়ে বনভান্তের পরিনির্বাণ দিবস উপলক্ষে ধর্মীয় সংগীত পরিবেশন করেন সংগীত শিল্পী বাচ্চু চাকমা ও র্ধমরত্না চাকমা। শুভেচ্ছা বক্তব্য ও বিশেষ প্রার্থনা পাঠ করেন রাঙামাটি রাজবন বিহারের কার্যনির্বাহী পরিষদের সভাপতি গৌতম দেওয়ান ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন রাঙামাটি রাজবন বিহারের পৃষ্ঠপোষক চাকমা সার্কেল চীফ ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায়। পূণ্যার্থীদের মাঝে দেশনা প্রদান করেন রাঙামাটি রাজবন বিহারের আবাসিক প্রধান ও ভিক্ষু সংঘের প্রধান শ্রীমৎ প্রজ্ঞালংকার মহাস্থবির ও জ্ঞান প্রিয় মহাস্থবির ভিক্ষু।

এছাড়া বাংলাদেশের সকল সম্প্রদায় ও বিশ্ব জাতির মঙ্গল কামনায় বুদ্ধ মূর্তি দান, হাজার প্রদীপ দান, অষ্টপরিস্কার দান ও বিশ্ব শান্তির উদ্দেশ্য টাকা দান ও পিন্ডুদান সহ নানা বিধ দান অনুষ্ঠিত হয়।

শ্রাবক বুদ্ধ শ্রীমৎ সাধনানন্দ মহাস্থবির বনভান্তের ৬ষ্ঠ তম পরিনির্বাণ উপলক্ষে বিভিন্ন স্থান থেকে হাজার হাজার পূণার্থী সমবেত হয়েছে রাজবন বিহারে। পুষ্পমাল্য ও শ্রদ্ধাঞ্জলী নিবেদনের মাধ্যমে রাঙামাটি রাজবন বিহার মুখরিত হয়ে উঠে। হৃদয়ের ভারাক্রান্তে ব্যাকুল হয়ে বনভান্তের পদতলে পুষ্প নিবেদন করে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন রাঙামাটি রাজবন বিহারের পৃষ্ঠপোষক চাকমা সার্কেল চীফ ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায় , রাঙামাটি রাজবন বিহারের কার্যনির্বাহী পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি গৌতম দেওয়ান,সাবেক পার্বত্য উপমন্ত্রী মনিস্বপন দেওয়ান সহ অন্যান্য প্রমূুখ। অনুষ্ঠানের পরিশেষে পরিনির্বান প্রাপ্ত শ্রীমৎ সাধনানন্দ মহাস্থবির বনভান্তের ক্যাসেটে ধারনকৃত দেশনা শোনানো হয়।

উল্লেখ্য যে , ২০১২ সালের ৩০শে জানুয়ারী শ্রাবক বুদ্ধ শ্রীমৎ সাধনানন্দ মহাস্থবির (বনভান্তে ) সকল বৌদ্ধ জাতিদেরকে কাঁদিয়ে চির বিদায় নিয়ে পৃথিবী ছেড়ে পরিনির্বাপিত প্রাপ্ত হন।হাজার হাজার ভক্তদের হৃদয়ের মাঝে চির অমর হয়ে আজও বেঁচে রয়েছেন তিনি।